10 October 2019

স্বাধীনতা সংগ্রামী ও  বৈজ্ঞানিক ড: মেঘনাথ সাহার ১২৬ তম জন্মবার্ষিকীতে শ্রদ্ধাঞ্জলি।

ছাত্রাবস্থায় পূর্ববঙ্গ -এর ছোট লাট স্যার বমফিল্ড ফুলার স্কুল পরিদর্শনে গেলে তাঁরই নেতৃত্বে ছাত্ররা বিদ্যালয় ত্যাগ করে প্রতিবাদ জানায়। এটা বঙ্গভঙ্গ বিরোধী আন্দোলন সারা বাংলায় যখন চলছিল তখনকার ঘটনা। ছাত্র জীবন হতেই এভাবে তাঁর রাজনীতির প্রতি আকর্ষণ লক্ষ্য করা যায়। বিপ্লবীদের সঙ্গে  তিনি যোগাযোগ রাখতেন। ১৯১৪ সালের বন্যাত্রাণের কাজে তাঁর গৌরবোজ্জ্বল ভূমিকা ছিল। ১৯২৩ সালে আচার্য প্রফুল্ল চন্দ্র রায়ের রিলিফ কমিটিতে থেকে তিনি জনহিতকর কাজে অংশ গ্রহণ করেন।দেশ ভাগ হলে উদ্বাস্তুদের পুনর্বাসন  ও অন্যান্য সমস্যা নিয়ে তিনি আন্দোলন  করেন।তিনি লোক সভার সদস্য হন। সে সময় বিরোধীপক্ষের নেতা নির্বাচিত  হয়ে ছিলেন।

ড: মেঘ্ নাথ সাহা ১৮৯৩ সালের ৬ ই অক্টোবর  ঢাকা জেলার অন্তর্গত সেওড়াতলী নামে একটি অখ্যাত গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। পিতা জগন্নাথ সাহার আর্থিক অবস্থা ভাল ছিল না। ড: মেঘনাথ সাহা ৫ বছর বয়সে ৫ মাইল দূরের প্রাথমিক স্কুলে পড়াশুনা শুরু করেন।পরে ঢাকা কলেজিয়েট স্কুলে ভর্তি হন। ঢাকা কলেজ হতে আই. এস. সি. পাশ করেন। পরে কলকা তা বিশ্ববিদ্যালয় হতে এম. এস. সি. তে কৃতিত্বের সাথে উত্তীর্ণ হন। ১৮১৮ সালে বিজ্ঞান কলেজের লেকচারার হন। সে বছরেই কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় হতে ডি.এস.-সি. হন।

১৯২০সালে থিওরি অব থারমাল আইওনাইজেশন তত্বের প্রবক্তা এই গর্বেষনা মেঘনাথ সাহাকে বিখ্যাত করে তোলে। উচ্চতর গর্বেষণার জন্য তিনি লন্ডনে যান। পরে যান বার্লিনে। দীর্ঘ ৬ বছর গর্বেষণার পর দেশে ফেরেন এবং কলকাতা বিশ্ববিদ্যালের খয়রা অধ্যাপক হন।

১৯২৩ সালে তিনি এলাহাবাদ বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগ দেন। দীর্ঘ ১৫ বছর এলাহাবাদেই থাকেন। সূর্যের বর্ণালি তিনি বিশ্লেষণ করেন। এই বিশ্লেষণে তিনি দেখান যে সূর্যদেহে পৃথিবির সব বস্তুগুলোই বর্তমান। সূর্যের প্রতি ১০০ ভাগের মধ্যে হাইড্রোজেন ৮১.৭.বাকি১৮.১৭ হিলিয়াম.. ০৭কার্বন, নাইট্রোজেন,অক্সিজেন। লৌহ, নিকেল, দস্তা,সিসা, সোডিয়াম, ক্যালসিয়াম, সুলু কন, প্রভৃতি পার্থিব উপাদানের গ্যাস। এছাড়া সূর্যের বিকিরন কে বিশ্লেষণ করে পৃথিবীর রহস্য নির্ধারণ  করেন। জ্যোতিবিজ্ঞানে তাঁর এই আবিষ্কার নিউটনের ১০টিসেরা আবিষ্কারের পরই স্থান পেয়েছে।আয়নমন্ডল ও বেতার তরঙ্গ নিয়েও তিনি গর্বেষণা চালান।

তিনি বহু সংগঠনের সাথে যুক্ত ছিলেন, বহু সম্মানও লাভ করেন এবং তিনি বিভিন্ন দেশের বিজ্ঞানের সন্মেলনও আলোচনা চক্রে যোগ দিয়েছেন।১৯২৫ সালে ভারতের বিজ্ঞান কংগ্রেসের পদার্থ বিদ্যার তিনি মূল সভাপ তি হন। তাঁর প্রচেষ্টায় ১৯৩১ সালে এলাহাবাদ বিজ্ঞান পরিষদ গঠিত হয়।
১৯৫৬সালের ১৬ই ফেব্রুয়ারি তাঁর মৃত্যু হয়।তাঁর সন্মানার্থে তাঁরই প্রতিষ্ঠিত ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অব সায়েন্সের নাম 'সাহা ইন্সটিটিউট অব নিউক্লিয়ার ফিজিক্স' হয়।
লাইক, কমেন্ট ও শেয়ার করুন। যে কোনো বিষয়ে জানা- অজানা তথ্য আমাদের সাথে আপনিও শেয়ার করতে পারেন।১০০০ শব্দের মধ্যে গুছিয়ে লিখে ছবি সহ মেল করুন  wonderlandcity.net@gmail.com ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।

02 October 2019

ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনের অন্যতম প্রভাবশালী বিপ্লবী ভগৎ সিং এর ১১২তম জন্মবার্ষিকীতে শ্রদ্ধাঞ্জলি


১৯১৯ সালের জালিয়ানওয়ালাবাগের নৃশংস হত্যাকাণ্ড তাঁর মনে গভীর রেখাপাত করে। ১৯১৯ সালের ১৩ এপ্রিল ভগৎ সিং সেই মর্মান্তিক ঘটনা শোনেন, এরপর তিনি বাসে করে ৪০/৫০ মাইল দূরে অমৃতসরের জালিয়ানওয়ালাবাগে ছুটে যান। সেখানকার ত্রাস ও দুর্যোগের পরিবেশ উপেক্ষা করে কুড়িয়ে আনেন সেই রক্তরঞ্জিত মাটি। এই মাটি তাঁর কাছে সোনার চেয়েও খাঁটি। এ মাটি বিদ্রোহের প্রতীক। এভাবে ভগৎ সিং ছেলেবেলা থেকেই ব্রিটিশদের প্রতি ঘৃণা ও বিপ্লবীদের প্রতি শ্রদ্ধা প্রর্দশন করেছেন। আর দেশকে মুক্ত করার জন্য জীবন বাজী রেখে ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন আন্দোলন ও সংগ্রামে অংশগ্রহণ করেছেন এবং শেষ পর্যন্ত ব্রিটিশদের দেওয়া ফাঁসির দড়ি হাসিমুখে বরণ করেন।
বিপ্লব প্রচেষ্টার হাতিয়ার হিসেবে জাতীয় আদর্শ ও ভাব ধারার প্রচার লেখার মাধ্যমে করতেন ছদ্মনামে। গুরুমুখী, হিন্দি ও উর্দুতে তিনি অমৃতসরের 'কীর্তি', দিল্লির 'মহারথী', কানপুরের 'প্রতাপ' ও 'প্রভা' এবং এলাহাবাদের'চাঁদ' পত্রিকায় নিয়মিত লিখতেন। 'সংগঠন ও প্রচারের কাজ কে তিনি পরস্পরের পরিপূরক মনে করতেন। তিনি সাইমন কমিশনের বিরুদ্ধে জাতীয় বিক্ষোপ সৃষ্টি করার প্রচেষ্টা চালান।
ভগৎ সিংহের জন্ম একটি জাট শিখ পরিবারে। তাঁরই পরিবার পূর্ব থেকেই ব্রিটিশ বিরোধী বিপ্লবী আন্দোলনের সঙ্গে জড়িত ছিল। কৈশোরেই ভগৎ সিংহ ইউরোপীয় বিপ্লবী আন্দোলনের ইতিহাস সম্পর্কে পড়াশোনা করেন এবং  কমিউনিজমের প্রতিও প্রতি আকৃষ্ট হন। এরপর তিনি একাধিক বিপ্লবী সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত হয়ে পড়েন। দেশের লোকের প্রতিবাদ, নির্বাচিত প্রতিনিধিদের বিরোধিতা,ব্যবস্থাপক সভার সভাপতির  আপত্তি বা পরামর্শঅগ্রাহ্য করে বড়লাট যে দমনাস্ত্র হাজির করতে বলেছেন তার বিরুদ্ধে অধ্যক্ষ বল্লভভাই প্যাটেল রুলিং দেবেন এরূপ সিন্ধান্ত হয়ে আছে পূর্ব হতেই। রুদ্ধশ্বাস ঔৎসুক্য নিয়ে সদস্যবৃন্দ অপেক্ষা করছেন - হঠাৎ দুম দুম করে দুটি বোমার আওয়াজ হল। বোমার ব্জ্রনিনাদে ধ্বনিত হল ভারতের প্রতিবাদ জানালেন দু'জন তরুণ।এটা ১৯২৯ সালের ৮ই এপ্রিলের ঘটনা।
একজন পাঞ্জাবী সর্দার ভগৎ সিংহ যিনি জন্মগ্রগণ গ্রহন করেন ১৯০৭সালের ২৭শে সেপ্টেম্বর ব্রিটিশ  ভার তেের পশ্চ্চিমে  পাঞ্জাবের লায়লপুর জেলার বংগা গ্রামে ।এ সময়  তাঁর বয়স মাত্র ২১ বছর। অপর জন ছিল তাঁরই সমবয়সী বটুকেশ্বর দত্ত বাংলার সনতান।বোমা ফাটাবার পর ‘ইনকিলাব জিন্দাবাদ’, ‘সাম্রাজ্যবাদ নিপাত যাক’, ‘দুনিয়ার মজদুর এক হও’ শ্লোগান দেন, যে-আওয়াজ ওইভাবে এর আগে কখনো শোনা যায়নি। পালাবার চেষ্টা না-করে তাঁরা নির্ভয়ে ইস্তাহার বিলি করতে থাকেন।  তাঁরা ইস্তাহার বিলি করতে থাকেন।
তিনি ১৯২৬সালের বিপ্লবী আন্দোলন প্রকাশ্য ফ্রন্ট 'নোও জোয়ান ভারতসভা' এবং পরবর্তীকালে হিন্দুস্থান প্রজাতন্ত্রী ও ভারতীয় প্রজাতন্ত্র দল প্রবর্তন ও পরিচালনার সাথে যুক্ত থাকেন।দিল্লিতে সারা ভারতের বিল্পবীদের ঐঐক্যবদ্ধ  করার উদ্দেশ্যে যে অনুষ্ঠান বা সন্মেলন ১৯২৮ সালে হয়েছিল সেখানে দলের নাম পরিবর্তন করে হিন্দুস্থান সমাজবাদী প্রজাতন্ত্রী দল নাম করণ হয়। এ সময় সমস্ত কাজে তাঁর রচিত গঠনতন্ত্র, আইনকানুন, ঘোষ্ণণা ও ইস্তাহার গৃহিত হয়। এ সব কাজে তাঁর  কর্মক্ষমতার পরিচয় পাওয়া যায়।
লাহোরের নিরস্ত্র ও শান্ত বিক্ষোভ সমাবেশে দেশপ্রেমী লালজির ওপর পুলিশ নগ্নভাবে আক্রমণ করেছিল। এই আক্রমণ ভগৎ সিংহকে ক্ষিপ্ত করে তোলে। এই আক্রমণের পিছনে যে অফিসার ছিল তাকে শাস্তি দেবার দায়িত্ব
ভগৎ সিংহ নিজের হাতে নেন।লালা লাজপত রায়ের মৃত্যুর প্রতিশোধ হিসাবে তিনি এক পুলিশ অহিসারকে হত্যা করেন। ১৯২৯ সালের এপ্রিলে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়।১৯২৯ সালেই জুন মাসে ভগৎ সিংহ ও বটুকেশ্বর দত্তের যাব্জজীবন কারাদন্ড হয়।জেলে ভারতীয় ও ব্রিটিশ বন্দীদের সমানাধিকারের দাবিতে ৬৪ দিন টানা অনশন চালিয়ে তিনি সমর্থন আদায় করেন।
তারপর স্যান্ডার্স হত্যার অপরাধে তাঁকে আসামি করা হয়।এই মামলা লাহোর ষড়যন্ত্র মামলা বলে খ্যাত। স্যান্ডার্স হত্যার অপরাধে ১৯৩১সালের ২৩শে মার্চ ভগৎ সিংহের ফাঁসি হয়।
প্রিয় পাঠক–পাঠিকা ভালো লাগলে লাইক, কমেন্ট ও শেয়ার করুন। যে কোনো বিষয়ে জানা- অজানা তথ্য আমাদের সাথে আপনিও শেয়ার করতে পারেন।১০০০ শব্দের মধ্যে গুছিয়ে লিখে ছবি সহ মেল করুন  wonderlandcity.net@gmail.com ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।

27 September 2019

২৬শে সেপ্টেম্বর বিদ্যাসাগরের দ্বিশত জন্ম বার্ষিকীতে শ্রদ্ধাঞ্জলি।

১৮২০ সালে মেদিনীপুর জেলার বিরসিংহ গ্রামে বাংলার এক উজ্জ্বল জ্যোতিষ্ক জণ্মগ্রহন করেন মাতা ভগবতীদেবীর কোলে। পিতার নাম ঠাকুরদাস বন্দ্যোপাধ্যায়। এই জ্যোতিষ্কের নাম ঈশ্বরচন্দ্র বন্দ্যোপাধ্যায়। ঈশ্বরচন্দ্র ছোটবেলায় খুব দুরন্ত থাকলেও তিনি ছিলেন খুব বুদ্ধিমান। গ্রামের পাঠশালায় মন দিয়ে পড়াশুনা করতেন। গুরুমশাইয়ের কাছ থেকে অল্প দিনেই সব শিখে ফেললেন এবং
উচ্চশিক্ষ্যার জন্য পিতার হাত ধরে কল কাতায় আগমন। সেই সময় রেল গাড়ি ছিল না। বিরসিংহ গ্রাম থেকে পিতা পুত্র প্রায় ১২৮ কিমি: পায়ে হেঁটে কলকাতায় রওনা দেন। পথের ধারে মেইল স্টোন দেখে ঈশ্বরচন্দ্র ইংরাজি সংখ্যাগুলি শিখে নেন।

ঈশ্বরচন্দ্র কলকাতায় সংকৃত কলেজে ভর্তি হন। কিছুদিনের মধ্যেই ঈশ্বরচন্দ্র সাহিত্য, ব্যাকরণ, সংকৃত সহ আরও কিছু বিষ য় আয়ত্ব করে ফেলেন। তাঁর পান্ডিত্য দেখে দেশের পন্ডিতগণ তাঁকে বিদ্যাসাগর উপাধিতে ভূষিত করেন। তখন তাঁর বয়স মাত্র কুড়ি।

তিনি কলকাতার ফোর্ট উইলিয়াম কলেজে চাকরিতে যোগ দেন। এই সময় থেকেই ঈশ্বরচন্দ্র সংসারের সব দায়িত্ব নিয়ে নেন।পিতা এসময় চাকরি ছেড়ে গ্রামে ফিরে যান। ঈশ্বরচন্দ্রের ইচ্ছা হয় মাকেকিছু গয়না গড়িয়ে দেবেন,ছেলের ইচ্ছের কথা শুনে মা বললেন তাঁর তিনটি  গহনা চাই। গ্রামের ছেলেদের জন্য একটা স্কুল, মেয়েদের জন্যেএকটা স্কুল আর গরিবদের জন্য একটা ডাক্তারখানা। মায়ের এই গুন ছেলের মধ্যেও দেখা গিয়ে ছিল। নিজের জন্য বিদ্যাসাগর কখনও কিছু করেন নি।দেশের জন্য করেছেন।মাতৃভক্তির জন্য বিদ্যাসাগরের নাম কিংবদন্তী হয়ে আছে।
দানশীলতার জন্য তিনি বিখ্যাত ছিলেন।তাঁকে দয়ার সাগর বলা হত। রাম মোহনের সতীদাহ প্রথা উচ্ছেদের পর বিধবা বিবাহ আইনের জন্য লড়াই করেন এবং তা  আইনবদ্ধ হয় তাঁরই প্রচেষ্টার ফলে।
১৮৪১সালে ফোর্ট উইলিয়াম কলেজে হেড পন্ডিতের পদ পান ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর। চিরদি ন তিনি গোঁড়ামি, কু সংস্কার, ধর্মান্ধতার বিরুদ্ধে লড়াই করে যান।স্কুল বিভাগের শিক্ষ্যার জন্য বহু গ্রন্থ বিদ্যাসাগর রচনা করেন। যেমন বোধোদয়, বর্ণ পরিচয়, কথামালা প্রভৃতি। এছাড়াও তিনি বেতাল পঞ্চবিংশতি, শকুন্তলা, সীতার বনবাস প্রভৃতি রচনা করেছিলেন বাংলা ভাষার বল সঞ্চারের জন্য।তাঁকে বাংলা গদ্যের জনক বলা হয়।
স্মপাদনা ক রেছিলেন উত্ত ররাম চ রিত,রঘুবংশ,কুমারস্মভব, কাদম্বরী, মেঘদূত, ইত্যাদি গ্রন্থ।ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরএশিয়াযটিক সোসাইটির সভ্য ছিলেন। ১৮৯১সালের ২৯শে জুলাই তিনি প র লোক গ মন করেন।ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের সম্পর্কে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের উ ক্তি ছিল "তিনি হিন্দু বা বা বাঙ্গালী ব্রাহ্মণ ছিলেন না। তাঁর প্রথম প রি চ য় তিনি ছিলেন মানুষ।তাঁর মহৎ চরিত্রের যে অক্ষয় বট তিনি বঙ্গভূমিতে রোপণ করে গেছেন, তার তলদেশ জাতির তীর্থ স্থান হয়েছে"। ড:সুকুমার সেনের কথায় "বিদ্যাসাগ রের আগে বাংলা গদ্যের চ ল ছিল, কিন্তু চাল ছিল না"।
মহাত্মা গান্ধী  ব লে ছিলেন-"আমি যে দরিদ্র বাঙ্গালী ব্রাহ্মণকে শ্রদ্ধা ক রি তিনি ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর"।

প্রিয় পাঠক–পাঠিকা ভালো লাগলে লাইক, কমেন্ট ও শেয়ার করুন। যে কোনো বিষয়ে জানা- অজানা তথ্য আমাদের সাথে আপনিও শেয়ার করতে পারেন।১০০০ শব্দের মধ্যে গুছিয়ে লিখে ছবি সহ মেল করুন  wonderlandcity.net@gmail.com ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।

আপনি কি এখনো  আধার প্যান কাডের সাথে লিংক করেন নি? হাতে আর মাত্র কয়েক টি দিন। ৩০শে সেপ্টেম্বেরের মধ্যে আপনাকে এই কাজ টি করে ফেলতে হবে। নচেত আপনার প্যান অকেজো হয়ে যাবে।

আপনি যদি এই মাসের মধ্যে আধারের সাথে প্যান লিঙ্ক না করেন তবে আপনার প্যান কার্ডটি অকেজো হয়ে যেতে পারে।  আপনার প্যান কার্ডকে আধার সাথে যুক্ত করার শেষ তারিখ 30 সেপ্টেম্বর আপনি যদি কোনও প্যানের সাথে লিঙ্কযুক্ত নয় এমন একটি আধার নম্বর উদ্ধৃত করে আইটিআর ফাইল করেন তবে আপনাকে স্বয়ংক্রিয়ভাবে একটি নতুন প্যান কার্ড দেওয়া হবে।

আধার কার্ডের সাথে আপনার স্থায়ী অ্যাকাউন্ট নম্বর (প্যান) কার্ডের লিঙ্ক করার সময়সীমা এই মাসে শেষ হচ্ছে। এই বছরের শুরুর দিকে অর্থ মন্ত্রকের জারি করা একটি প্রজ্ঞাপন(নটিফিকেশন)অনুসারে, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ প্যান ও আধার দুটি আইডি কার্ডের লিঙ্ক দেওয়ার শেষ তারিখ। সরকার অতীতে বেশ কয়েকবার সময়সীমা বাড়িয়েছে এবং সংযোগ প্রক্রিয়াটি শেষ করার এটিই শেষ এবং চূড়ান্ত আহ্বান হতে পারে।
প্যানটিকে আধার সাথে লিঙ্ক না করলে কী হবে আধারটিকে প্যানের সাথে সংযুক্ত না করার পরিণতিগুলি ফিনান্স বিলে 2019 সালে স্পষ্টভাবে বর্ণিত হয়েছে। আয়কর আইনের ধারা 139AA এর উপ-ধারা (2) এর আগে বলেছিল যে প্যানটি যদি আধার সংখ্যার সাথে সংযুক্ত না হয় তবে অবৈধ হয়ে যাবে।
তবে, অর্থ বিলটি এই মাস থেকে কার্যকর করে এই বিধানটি সংশোধন করেছে। নতুন নিয়ম অনুসারে, এই জাতীয় সমস্ত প্যান কার্ডগুলি "নিষ্ক্রিয়" হয়ে যাবে। এর অর্থ এই যে এই জাতীয় প্যান কার্ডগুলি আর ব্যবহার করা হবে না সরকার হিসাবে ব্যবহৃত। পরে এগুলি আবার চালু করা যায় কিনা তা এখনও পরিষ্কার নয় কারণ আয়কর বিভাগের দ্বারা "নিষ্ক্রিয়" শব্দটি এখনও সংজ্ঞায়িত হয়নি।

আয় ক র রিযতার্ন দাখিল করার সময় যারা আধার নম্বর উদ্ধৃত করেছেন, যা কোনও প্যানের সাথে লিঙ্কযুক্ত নয়, তাদের আয়কর রিটার্ন (আইটিআর) করার সময় স্বয়ংক্রিয়ভাবে একটি নতুন প্যান কার্ড দেওয়া হবে।

প্যান কীভাবে আধার সাথে যুক্ত করবেন আপনি আয়কর বিভাগের ই-ফাইলিং ওয়েবসাইটে আপনার 12-সংখ্যার ইউআইডিএআই-জারি হওয়া আধারক নম্বরটি আপনার 10-সংখ্যার আলফানামুরিক প্যানের সাথে সহজেই সংযুক্ত করতে পারেন। আপনি পোর্টালে লিঙ্কে আধার-প্যানের স্থিতিও পরীক্ষা করতে পারেন। সমস্ত নতুন প্যান কার্ডের জন্য আপনার আধার নম্বরগুলি উদ্ধৃত করা বাধ্যতামূলক। আয়কর রিটার্ন (আইটিআর) ফাইল করার সময় আপনার প্যানটিকে আধার সাথে যুক্ত করা বাধ্যতামূলক।

পোস্টটা ভালো লেগে থাকলে অবশ্যই একটু Comment করে আপনার মূল্যবান মতামত  জানাবেন আপ নার মূল্যবান মতামত আমাদের বাড়তি অনুপ্রেরণা যোগাতে  ভীষনভাবে সাহায্য করবে | কোনো বিষয়ে জানা- অজানা তথ্য আমাদের সাথে আপনিও শেয়ার করতে পারেন।১০০০ শব্দের মধ্যে গুছিয়ে লিখে ছবি সহ মেল করুন  wonderlandcity.net@gmail.com ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।

10 September 2019

শিশু সাহিত্যিক সুকুমার রায়ের ৯৬ তম মৃত্যু বার্ষিকীতে আমাদের শ্রদ্ধাঞ্জলি।

সুকুমার  রায়ের পিতা উপেন্দ্রকিশোর  রায় ছিলেন একজন বিখ্যাত শিশু সাহিত্যিক। পিতার কাছ থেকে শিশু সাহিত্যি রচনার প্রেরণা সুকুমার রায় শৈশবেই পান। বাংলা সাহিত্যে সুকুমার রায় হলেন এমন একজন ব্যক্তিত্ব, যার লেখা অসাধারণ কিছু সাহিত্যকর্ম আজও বাঙালীর মনে অমর হয়ে আছে | সুকুমার রায়ের পুত্র সত্যজিৎ রায়ও একজন শিশু সাহিত্যিক। তিন পুরুষব্যাপী শিশু সাহিত্যি রচনায় বিশেষ স্থান অধিকার করে আছে কলকাতার এই রায় পরিবার। ২০১৯ সালে সুকুমার  রায়ের ৯৬ তম  মৃত্যু বার্ষিকীতে আমাদের শ্রদ্ধাঞ্জলি।

সুকুমার রায় ১৮৮৭ সালে কলকাতার  এক ব্রাহ্ম পরিবারে জন্ম জন্মগ্রহন করেন| তাঁর মা বিধুমুখী দেবী ছিলেন ব্রাহ্মসমাজের প্রধান সংস্কারক দ্বারকানাথ গঙ্গোপাধ্যায়ের মেয়ে |

সুকুমার রায় ছোটবেলা থেকেই মুখে মুখে নানা ধরণের ছড়া তৈরি করে ফেলতেন অনায়াসেই | এমনকি গান গাইতেন, নাটক করতেন আর কবিতাও লিখতে। এক কথায় যদি বলতে হয় তাহলে সেইসময় থেকেই তিনি একধরনের মজাদার গোছের মানুষ ছিলেন এবং সবাইকে নেতৃত্ব দিতে খুব ভালোবাসতেন |

তাঁর বোন পুণ্যলতা তাঁর সম্পর্কে একসময় বলেছিলেন- “দাদা যেমন আমাদের খেলাধুলা ও সব কিছুরই পাণ্ডা ছিলো, তেমনি বন্ধুবান্ধব ও সহপাঠীদের মধ্যেও সে সর্দার ছিলো । তার মধ্যে এমন কিছু বিশেষত্ব ছিল যারজন্য সবাই তাকে বেশ মানতো । এমনকি বড়রাও তার কথার বেশ মূল্য দিতো”

প্রেসিডেন্সি কলেজে পড়ার সময়ই তিনি কগড়ে তুলেছিলেন “ননসেন্স ক্লাব”। এই ক্লাবের মুখপত্র ছিল হাতে লেখাকাগজ-“সাড়ে বত্রিশ ভাজা” |
তার জনপ্রিয় সাহিত্য কর্ম আবোল তাবোল, হ-য-ব-র-ল, পাগলা দাশু, কাতুকুতু বুড়ো, হুঁকো মুখো হ্যাংলা ইত্যাদি

সাড়ে বত্রিশ ভাজার পাতাতেই  সুকুমার রায় জীবনের সর্বপ্রথম নিজের রচিত হাস্যরসযুক্ত কিছু লেখা প্রকাশ করেন | আর এই ক্লাবের জন্য তিনি দুটো নাটকও রচনা করেছিলেন, যেগুলোর নাম যথাক্রমে ছিলো “ঝালাপালা”  ও “লক্ষণের শক্তিশেল”।ক্লাবের সদ্যসের নিয়েই তিনি, এই দুটো নাটককে সবার মাঝে পরিবেশন করেন। ননসেন্স ক্লাবের প্রতিটা নাটক দেখার জন্য, সেইসময়কার প্রচুর ছেলে ও বুড়োরা ভীষন ভিড় জমাতো এবং তাদের সবারই পছন্দের নাট্যকার ছিলেন সুকুমার রায়। আবোল তাবোল (১৯২৩),পাগলা দাশু (১৯৪০)হেশোরাম হুশিয়ারের ডায়েরি, খাই-খাই (১৯৫০)। আবোল তাবোল’ পুস্তকটি প্রকাশিত হয়েছিল ১৯২৩-এর ১৯শে সেপ্টেম্বর, সুকুমারের মৃত্যুর ন’দিন পরে।

সুকুমার রায়ের মৃত্যুর ১৭ বছর পর ১৯৪০ সালে প্রথম প্রকাশিত হয় তার গল্প সংকলন ক'পাগলা দাশু'। এই গল্পগুলো সুকুমার  রায়ের সম্পাদিত পত্রিকা ' সন্দেশ'এ প্রকাশিত হত।এই সংকলনের ভূমিকা লিখেছিলেন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর।

নাটক করা ছাড়াও, সন্দেশের সম্পাদক থাকাকালীন তাঁর লেখা ছড়া, গল্প ও প্রবন্ধ সবারই ভীষন পছন্দের ছিল, আজও বাংলা শিশুসাহিত্যে তাঁর রচিত সব  সাহিত্যকর্মই মাইলফলক হয়ে আছে আর ভবিষ্যতেও একই থাকবে |

তিনি রসায়ন ও পদার্থ বিজ্ঞানে অনার্সে বি,এস,সি পাশ করার পর ১৯১১ সালেমুদ্রণ শিল্পে উচ্চ শিক্ষা লাভ করতে বিলেত যান। সে সময় বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথের সহিত বিলেতে তার সাক্ষাৎ হয়। সুকুমার রায় ইস্ট অ্যাড ওয়েস্ট সোসাইটির এক অধিবেশনে 'দি স্পিরিট অব রবীন্দ্রনাথ' নামক এক প্রবন্ধ পাঠ করেন। ইংল্যান্ডের সুধী সমাজে রবীন্দ্রনাথ তখন ও পরিচিত নন। সুকুমার যখন ইংল্যান্ডে পড়াশুনা করছিলেন, সেইসময় অন্যদিকে তাঁর বাবা উপেন্দ্রকিশোর রায়চৌধুরী জমি কিনে একটা  উন্নত-মানের রঙিন হাফটোন ব্লক তৈরি করেন এবং সেইসাথে নিজস্ব ছাপাখানাও স্থাপন করেন | এইসবই তিনি তৈরী করেছিলেন ছোটদের জন্য একটা মাসিক পত্রিকা “সন্দেশের”, প্রকাশনার উদ্দেশ্যেই | কিন্তু ১৯১৩ সালে ইংল্যান্ড থেকে পড়াশোনা শেষ করে সুকুমার রায় যখন কলকাতায় ফিরে আসেন, তার ঠিক অল্প কিছুদিনের মধ্যেই তাঁর বাবা উপেন্দ্রকিশোরের মৃত্যু হয়।

এরপর ইংল্যান্ড থেকে ফিরে এসে তিনি  “মনডে ক্লাব” নামে ননসেন্স ক্লাবেরই মতো একই ধরণের আরেকটা ক্লাব খুলেছিলেন | এই ক্লাবের সাপ্তাহিক সমাবেশে, সদস্যরা সব বিষয় সম্পর্কেই আলোচনা করতেন ।ছোটবেলা হতেই সাহিত্য রচনায় তাঁর প্রতিভা লক্ষ্য করা যায়। মাত্র ৯ বছর বয়স থেকেই তিনি  'মুকুল' ও 'সন্দেশ' পত্রিকায়  নিয়মিত ভাবে লিখতেন। বাবার মৃত্যুর পর একজন দায়িত্ববান ছেলে হিসাবে এরপর তিনিই সন্দেশ পত্রিকার সম্পাদনার দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নেন এবং সেই পত্রিকাতেই নিজের অভূতপূর্ব সাহিত্যকর্ম গুলো একে একে প্রকাশ করতে থাকেন | বাবার মৃত্যুর পর আট বছর ধরে তিনি এই সন্দেশ পত্রিকার ও পারিবারিক ছাপাখানা পরিচালনার দায়িত্ব পালন করেন | তারপর সেইসবের দায়িত্ব তিনি আসতে আসতে তাঁর ছোটভাইকেই সম্পূর্ণরূপে দিয়ে দেন। বিয়ের ঠিক ৮ বছর পর অর্থ্যাৎ ১৯২১ সালের ২রা মে তারিখে সুপ্রভা দেবী তাঁর একমাত্র পুত্রসন্তানের জন্ম দেন | যার নাম দেওয়া হয়েছিল সত্যজিৎ।

সত্যজিৎ রায় জন্মগ্রহণ করার কিছু মাস পর থেকেই সুকুমার রায়ের শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়া শুরু হয়। পরে চিকিৎসা শুরু করার পর জানা যায়, তিনি কালাজ্বরে আক্রান্ত হয়েছেন এবংসেই সময় সেটাকে ঠিক করা একদম অসম্ভব | কারণ তখন সেইযুগে কালাজ্বরের উপযুক্ত চিকিৎসা পদ্ধতি ও ওষুধের আবিষ্কার হয়ে ওঠেনি |

কিন্তু মৃত্যু প্রায় নিশ্চিত জেনেও তিনি শেষসময়ে অসাধারণ মানসিক স্থৈর্যের পরিচয় দিয়েছিলেন | কারণ এত বড় একটা রোগে আক্রান্ত হওয়ার পরও তিনি নিজের কাজকে একটা দিনের জন্যও বন্ধ করেননি বরং আরো উদ্যমের সাথে সেটাকে করে গেছিলেন |

এই সম্পর্কে অবশ্য জানা যায়, সত্যজিৎ রায়ের একটা লেখায় | যেখানে তিনি তাঁর বাবার শেষের দিনগুলো সম্পর্কে লিখেছিলেন এই কথাগুলো:

“রুগ্ন অবস্থাতেও বাবার কাজের পরিমাণ ও উৎকর্ষ দেখলে অবাক হতাম । শুধু লেখা বা আঁকার কাজেই নয়, ছাপার কাজেও যে তিনি অসুখের মধ্যে অনেক চিন্তা ব্যয় করেছেন তারও প্রমাণ রয়েছে। একটি নোটবুকে তাঁর আবিষ্কৃত কয়েকটা মুদ্রণ পদ্ধতির তালিকা রয়েছে । এইগুলো পেটেন্ট নেবার পরিকল্পনা তাঁর মনে ছিলো, কিন্তু কাজে হয়ে ওঠেনি@@@@

এই সত্যজিৎ রায় পরবর্তীকালে বাংলা তথা ভারতীয় সিনেমা জগতের এক উজ্জ্বল জ্যোতিষ্ক হয়ে ওঠেন, যা আমরা  প্রত্যেকেই জানি।

১৯২৩ সালের ১০ই সেপ্টেম্বর,কালাজ্বরে ১০০নং গড়পার রোডের বাড়িতে মাত্র ৩৬ বছর বয়সে সাহিত্যিক সুকুমার রায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

পোস্টটা ভালো লেগে থাকলে অবশ্যই একটু Comment করে আপনার মূল্যবান মতামত  জানাবেন আপ নার মূল্যবান মতামত আমাদের বাড়তি অনুপ্রেরণা যোগাতে  ভীষনভাবে সাহায্য করবে | কোনো বিষয়ে জানা- অজানা তথ্য আমাদের সাথে আপনিও শেয়ার করতে পারেন।১০০০ শব্দের মধ্যে গুছিয়ে লিখে ছবি সহ মেল করুন  wonderlandcity.net@gmail.com ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।


05 September 2019

ড: স র্বপ ল্লী রাধাকৃষ্ণণের ১৩১তম জন্ম বার্ষিকীতে আমাদের শ্রদ্ধাঞ্জলি

ড: সর্বপল্লী রাধাকৃষ্ণণ মাদ্রাজে তিরুতানি শহরে  তেলেগু ব্রাহ্মণ পরিবারে জন্মগ্রহন করেন। পরিবারে অর্থনৈতিক স্বচ্ছলতা ছিল না। তিরুতানি শহরেই তাঁর প্রাথমিক শিক্ষা সম্পূর্ণ হয়। তিনি বেলোন কলেজে চার বছর পড়াশুনা করেন।১৯০৪ থেকে ১৯০৮ সাল পর্যন্ত রাধাকৃষ্ণণ মাদ্রাজ ক্রিশ্চান কলেজে পড়াশুনা করে বি, এ পরীক্ষায় প্রথম স্থান অধিকার করেন।তাঁকে ড: স্যামুয়েল স্বর্ণপদকে ভূষিত করা হয়।

রাধাকৃষ্ণণ পৃথিবির বিভিন্ন দেশে ভাষণ দিয়ে বহু  কৃতিত্ব অর্জন করেন। ১৯৫৫ সালে তাঁর 'ডিসকভারি অব ফেথ' গ্রন্থটি প্রকাশিত হয়।পরের বছর 'ইস্ট অ্যান্ড ওয়েস্ট' প্রকাশ পায়। ১৯৬২ সালে তিনি ভারতের দ্বিতীয় রাষ্ট্রপতির পদ গ্রহন করেন।
মাদ্রাজ বিশ্ববিদ্যালয়ে এম,এ পরীক্ষাতে একটি মৌলিক প্রবন্ধ রচনা করতে হত। রাধাকৃষ্ণণ ওই সময় 'এথিকস্ অব দ্য বেদান্ত' নামে একটি অসাধরণ মৌলিক প্রবন্ধ রচনা করলেন। তখন তাঁর বয়স মাত্র কুড়ি। ১৯১৯ সালে রাধাকৃষ্ণণ 'লরিয়েট ইন টিচিং' উপাধি লাভ করেন। এ সময় তিনি মাদ্রাজের প্রেসিডেন্সি কলেজে অধ্যাপকরূপে শিক্ষক বৃত্তি গ্রহন করেন।

দার্শনিক ও শিক্ষক এবং ডাঃ সর্বপল্লী রাধাকৃষ্ণনের জন্মবার্ষিকী এবং শিক্ষার ক্ষেত্রে তাঁর মনমুগ্ধকর অবদানের জন্য প্রতি বছর ৫ সেপ্টেম্বর শিক্ষক দিবস পালন করা হয়। তিনি ১৮৮৮ সালের ৫ সেপ্টেম্বর জন্মগ্রহণ করেছিলেন।
ডাঃ রাধাকৃষ্ণানের মতে  শিক্ষকরা আমাদের সমাজের স্তম্ভ, তারা আমাদের বাচ্চাদের জীবনে জ্ঞান, শক্তি দিয়ে সজ্জিত করতে এবং জীবনের বিভিন্ন সমস্যার মুখোমুখি হতে শিখিয়ে তুলতে এক অসাধারণ ভূমিকা পালন করে। তারা তাদের শিক্ষার্থীদের দেশের দায়িত্বশীল নাগরিক হতে শেখায়। ভারত সর্বকালের মহান শিক্ষকদের দ্বারা জ্ঞান বিতরণের জন্য স্বর্গ হিসাবে বিবেচিত হত। তদুপরি, তিনি চেয়েছিলেন যে শিক্ষার মান উন্নত করা উচিত এবং শিক্ষক, শিক্ষার্থী এবং তারা যেভাবে পড়িয়েছিলেন তার মধ্যে একটি দৃঢ় সম্পর্ক গড়ে তোলা উচিত। সব মিলিয়ে তিনি শিক্ষাব্যবস্থা পরিবর্তন করতে চান। তাঁর মতে শিক্ষকের উচিত ছাত্রদের স্নেহ লাভ করা এবং শিক্ষকদের  ছাত্রদের শ্রদ্ধা অর্জন করা উচিত।

আপনি কি জানেন শিক্ষক দিবসের উদ্ভব হ ল কীভাবে ? ডাঃ রাধাকৃষ্ণনের জন্মদিনের শুভ উপলক্ষে তাঁর ছাত্র-বান্ধবীরা তাঁকে তাঁর জন্মদিন উদযাপনের অনুমতি দেওয়ার জন্য অনুরোধ করেছিলেন তবে জবাবে ডঃ রাধাকৃষ্ণান বলেছিলেন যে, “আমার জন্মদিন আলাদাভাবে পালনের পরিবর্তে,  সেপ্টেম্বরেই শিক্ষক দিবস হিসাবে পালন করা ভালো হবে। ১৯৬২সাল থেকে, ভারত ৫ইসেপ্টেম্বর শিক্ষক দিবস পালন করে আসছে। দিনটি দার্শনিক ও শিক্ষক ডাঃ সর্বপল্লী রাধখৃষ্ণনের জন্মদিন এবং শিক্ষার ক্ষেত্রে তাঁর মননশীল অবদানের স্মরণে। ১৯৭৫ সালের ১৬ই এপ্রিল তাঁর মহা প্রয়াণ ঘটে।

প্রিয় পাঠক–পাঠিকা ভালো লাগলে লাইক, কমেন্ট ও শেয়ার করুন। যে কোনো বিষয়ে জানা- অজানা তথ্য আমাদের সাথে আপনিও শেয়ার করতে পারেন।১০০০ শব্দের মধ্যে গুছিয়ে লিখে ছবি সহ মেল করুন  wonderlandcity.net@gmail.com ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।

27 August 2019

প্রেম, শান্তি  ও আশ্রয়ের প্রতীক মাদার টেরেসার ১০৯ তম জন্ম বার্ষিকীতে শ্রদ্ধাঞ্জলি।

প্রেম, শান্তি  ও আশ্রয়ের প্রতীক একটি নাম হল মাদার টেরেসা। মানুষ কে শোষণ,নিপীড়ন, নিষ্ঠুরতার হাত থেকে মুক্তি দেবার জন্য যে সব সাধু-মহাত্মা অণেক  কষ্ট  ভোগ করেছেন,  মাদার টেরেসা ছিলেন তাঁদেরই  একজন। ইনি ১৯১০ সালে ২৭শে আগস্ট আড্রিয়াটিক সাগরের তীরে ছোট শহর স্কোপেনে এক আলবেনিয়ান কৃষক পরিবারে জন্মগ্রহন করেন। পিতার নাম ছিল নিকোলাস বোজাকসহিউ যিনি পেশায় ছিলেন মুদি। তিনি মেয়ের নাম রেখেছিলেন অ্যাগনেস গোনক্সহা বোজাকসহিউ।জন্ম সূত্রে মাদার যুগোশ্লোভিয়ার বাসিন্দা হলে ও জাতিসূত্রে তিনি আলবেনিয়ান। অ্যাগনেসের বয়স যখন ৭ বছর তখন তাঁর পিতার মৃত্যু হয়। মাতার কাছে তিনি মানু ষ হতে থাকেন। শৈশব হতেই বিশ্বের দুঃখী, আর্ত, অসহায় মানু ষের কান্না তার চোখের সামনে ভেসে উঠত।মায়ের প্রেরণাতেই গ রীবের প্রতি দয়া ও ঈশ্বরের প্রতি ভক্তি বিশ্বাস
অ্যাগনেস লাভ করেছিলেন।

স্কেপেজের পাবলিক স্কুলে পড়বার সময়ই সোডালিটি সংঘের মিশনারীদের কাজকর্মের প্রতি অ্যাগনেসের উৎসাহ ছিল। সংঘের পত্র - পত্রিকাগুলি নিয়মিত পড়তেন তিনি।তার নিজের কথায় 'At the age of twelve I first knew I had a vocation to help the poor. I wanted to be a missionary'.

স্কেপেজের পাবলিক স্কুলে পড়বার সময়ে কলকাতার প্রতি এক বিশেষ আকর্ষণ তৈরী হয়েছিল অ্যাগনেসের মনে।

অ্যায়ারল্যান্ডের লরেটো সংঘ তখন  কাজ করছিল। তাদের প্রধান কার্যালয় ছিল ডাবলিনে। অ্যাগনেস সেখানে যোগাযোগ করলেন এবং মায়ের অনুমতি নিয়ে যোগদিলেন লরেটো সংঘে।অ্যায়ারল্যান্ডের বাথার্নহামে গেলেন মাত্র আঠারো বছর বয়সে।

১৯২৮ সালে অ্যাগনেস জাহাজে ভেসে চলে এলেন কলকাতায়। যোগ দিলেন সিস্টারস অব লরেটোতে- আইরিস  সন্নাসিনীদের প্রতিষ্ঠান। সেই থেকেই তিনি মনে প্রানে বাংলার মানুষ হয়ে গেলেন।
তখন ও  পুরোপুরি  সন্নাসিনী তিনি হননি। শিক্ষানবিশী পর্ব শেষ করার জন্য  দার্জিলিং পাঠানো হল তাঁকে। দু বছর সেখানে কাটিয়ে গ্রহন করলেন সন্নাসিনী ব্রত।

কলকাতায় ফিরে এলেন সিস্টার অ্যাগনেস হয়ে। এন্টালির সেন্ট মেরিজ স্কুলে শিক্ষয়ত্রী হিসাবে যোগ দেন।দীর্ঘ কুড়ি বছর তিনি ঐ স্কুলের শিক্ষয়ত্রী ছিলেন। ১৯৪২ সালে তিনি ঐ স্কুলের অধ্যক্ষা হন। স্কুলে থাকাকালীন পাশে মতিঝিল বস্তির বাসিন্দাদের দুঃখ-কষ্ট,দারিদ্র, শিশুদের কষ্ট তাঁকে গভীরভাবে পীড়া দিত।
তখন চলছিল দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ। মানুষ সৃষ্ট দুর্ভিক্ষে কলকাতার অবস্থা তখন খুবই দুর্বিসহ। একটু ভাতের আশায়,  একবাটি ফ্যানের আশায় দলে দলে গ্রামের মানুষ ভিড় করছে কলকাতায়। অনাহারে কু খাদ্য খেয়ে মানুষ  মারা যাচ্ছে। সিস্টার অ্যাগনেস এই সম য় তাঁর কাজ শুরু করলেন।তাঁর নাম হ ল মাদার অ্যাগনেস।
১০ই সেপ্টেম্বর ১৯৪৬ সালে দার্জিলিং যাবার সময় এক অলৌকিক উপলব্ধি তাঁর হল। এই উপলব্ধির কথা বলতে গিয়ে তুনিব লেছেন  ,'a call within a call.... The message was clear.I was to leave rhe convent and help the poor, while living among them.
গরিবের সেবা করতে হলে তাদের মধ্যে থেকেই সেটা করতে হবে। এটা তিনি সারা জীবন স্মরণে রেখেছিলেন। তিনি বলতেন  'দ্য ডে অব ডিমিশন'--- অনুপ্রেরণার দিন।  মাদার অ্যাগনেস পরিনত হলেন মাদার টেরেসাতে। তাঁর প্রতিষ্ঠিত মিশনারিজ অব চ্যারিটি এই দিন টিকেই অনুপ্রেরণার দিবস হিসাবে পালন করে।
মাদার অ্যাগনেসে অধ্যক্ষার কাজ ছেড়ে দেন।ল রে টোর স ন্নাসীদের বেশ ত্যাগ করে পরলেন মোটা নীল পাড় শাড়ী। সেদিন তার সম্বল বলতেছিল পাঁচ টাকা, একটি বাইবেল, ক্রস গাঁথা একটি জপের মালা। আর সাথে ছিল ঈশ্বরে নির্ভরতা, মনোবল আর বিশ্বাস।

১৯৫০ সালে মিশনারিজ অব চ্যারিটি প্রতিষ্ঠা করে শুরু করলেন মানুষের সেবার কাজ।দুঃখী, দরিদ্র মানুষ কে একান্ত মায়ের স্নেহ- মমতায় তুলে নিলেন বুকে।
মাত্র পাঁচ টাকা মূলধন করে যে মিশনারিজ ইব চ্যারিটির  জন্ম হয়েছিল আজ তা বিশ্বে শত শত শাখা প্রশাখা বিস্তার করেছে।
মানবতার সেবা ও শিক্ষা প্রচারের জন্য তিনি বহু দেশে শিশু ভবন,  মহিলা কর্মক্ষেত্র, খাদ্য ও বস্ত্র বিতরণ কেন্দ্র, ভ্রাম্যমান চিকিৎসাকেন্দ্র ও কুষ্ঠাশ্রম ইত্যাদি স্থাপন করেন। বৃদ্ধ বয়সে ও  এই মহীয়সী নারী সেবার কাজে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে ঘুরে বেড়িয়েছেন।
মানুষ্ কে ভালোবাসার এক অভাব ণীয় দৃষ্টান্ত স্থাপন ক রে ছেন মাদার টেরেসা।গোটা বিশ্ব সেটা স্বীকার করে নতমস্তকে তাকে দিয়েছে নানা পুরস্কার।১৯৬২ সালে ভারত স র কারের 'পদ্মশ্রী', ১৯৭১সালে 'পোপের শান্তি' পুরস্কার।  এছাড়াও তিনি 'নেহ রু' 'মাস্টার অফ ম্যাজেস্টি', 'ভার ত র ত্ন', 'ম্যাগশেশাই' পুরস্কার এবং সন্মান পান।১৯৭৯ সালে ১৭ই অক্টোবর ভারতবর্ষ, এবং কলকাতার গৌর বের দিন। ভারতের নাগরিক মাদার টেরেসা পালেন নোবেল পুরস্কার। পোপ ফ্রান্সিস ৪ সেপ্টেম্বর ২০১৬ তে ভ্যাটিকান সিটির  সেন্ট পিটার্স স্কোয়ারে একটি অনুষ্ঠানে তাঁকে সন্ত উপাধি প্রদান করেন।ক১৯৯৭সালের৫ই সেপ্টেম্বর এই বিশ্ব জ ন নীচি র নিদ্রায় নিদ্রিত হ লেও আমাদের কাছে তিনিও ম র হ য়েই থাকবেন।

প্রিয় পাঠক–পাঠিকা ভালো লাগলে লাইক, কমেন্ট ও শেয়ার করুন। যে কোনো বিষয়ে জানা- অজানা তথ্য আমাদের সাথে আপনিও শেয়ার করতে পারেন।১০০০ শব্দের মধ্যে গুছিয়ে লিখে ছবি সহ মেল করুন  wonderlandcity.net@gmail.com ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।




15 August 2019

অগ্নিযুগের বিপ্লবী নেতা ও দার্শনিক শ্রী অরবিন্দ ঘোষের ১৪৭ তম জন্ম বার্ষিকীতে আমাদের শ্রদ্ধাঞ্জলি।


অগ্নিযুগের বিপ্লবী নেতা ও দার্শনিক শ্রী অরবিন্দ ঘোষের ১৪৭ তম জন্ম বার্ষিকীতে আমাদের শ্রদ্ধাঞ্জলি। বাবা  কৃষ্ণধন ছিলেন বাঙালি দের মধ্যে প্রথম বিলেত ফেরত চিকিৎসক।আচার ব্যবহার চাল চলনে কৃষ্ণধন ছিলেন পুরোদস্তর সাহেব। শ্রী অরবিনন্দের মা স্বর্ণলতা ছিলেন অত্যন্ত স্নেহময়ী। ভাই বোন মিলে
অরবিন্দরা মোট  পাঁচজন  ছিলেন।
বাড়িতে বিলেতি পরিবেশে বড় হচ্ছিলেন।
অরবিন্দের জন্ম হয়ে ছিল কলকাতার থিয়েটার রোডে ১৫ই আগস্ট ১৮৭২ সালে। ঘোষ পরিবারের বাড়ি যেন ইংরেজ পরিবার। শ্রীঅরবিনন্দের দেখাশোনার দায়িত্ব ছিল একজন ইংরেজ আয়ার হাতে। ছোট থেকে পাঁচ বছর পর্যন্ত অরবিন্দ জানতেই পারেননি যে তাঁর মাতৃভাষা বাংলা।শ্রীঅরবিন্দের বয়স যখন পাঁচ তখন তিনি দার্জিলিংয়ে সাহেব দের স্কুলে ভর্তি হন।
শ্রীঅরবিন্দের বয়স যখন সাত তখন তিনি ও  তাঁরভাই ইংল্যান্ডে পড়তে যান। শ্রী অরবিন্দ  কেম্ব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিএ পাশ করে দেশে ফিরে আসেন।ইংল্যান্ডে থাকার সময় তিনি জার্মান, ইতালিয়,স্পানিশ এবং গ্রীক ভাষা শিখেছিলেন।
লন্ডনে থাকাকালিন সে সময়কার বরোদার মহারাজা তাঁর রাজ্যের শিক্ষা বিভাগে ভালো বেতনে কাজ করার জন্য আহ্বান জানান। ১৮৯৩  সালে বিদেশে শিক্ষ্যিত হয়ে দেশ মাতৃকার সেবায় জীবন উৎসর্গ করতে শ্রীঅরবিন্দ দেশে ফিরে বরোদায় চলে আসেন।বারোদায় অরবিন্দ ভারতীয় সংস্কৃতির উপর গভীর অধ্যয়ন শুরু করেন, নিজ ঊদ্যোগে সংস্কৃত, হিন্দি এবং বাংলা, বিলেতের শিক্ষায় যেসব থেকে তাকে বঞ্চিত করা হয়েছিল।এই সময় তিনি সংস্কৃত হিন্দি ও বাংলা ভাষা শিক্ষা শুরু করেন। এরপর তিনি   অল্প টাকার বেতনে জাতীয় শিক্ষা পরিষদে অধ্যাপকের চাকরি নেন।তিনি বারোদা থেকেই তার প্রথম কাব্য সঙ্কলন "The Rishi" প্রকাশ করেন। একই সময়ে তিনি বৃটিশ বিরোধী সক্রিয় রাজনীতিতে আগ্রহী হয়ে ওঠেন।বাংলা ও মধ্য প্রদেশে ভ্রমন করে বিপ্লবী দলগুলোর সাথে সংযোগ স্থাপন করেন। লোকমান্য তিলক এবং ভইগ নি নিবেদিতার সাথেও যোগাযোগ স্থাপিত হয়।
১৯০৯ সালে যখন বঙ্গভঙ্গের বিরুদ্ধে সারা দেশ উত্তাল,সেই সময় তিনি বন্দেমাতরম  নামক একটি ইংরাজি পত্রিকা  সম্পাদনা করতেন। এই পত্রিকায় বঙ্গভঙ্গের বিরুদ্ধে লিখে তিনি পরিচিত হয়ে পড়েন। এমন সময় অনুজ বিপ্লবী বারীন ঘোষের মাধ্যমে বাংলার বিপ্লবী দলের সাথে তাঁর যোগাযোগ ঘটে।বারীন ঘোষ কে তিনি  চিঠি লিখে নির্দেশ দেন ছেলেদের মধ্যে শৃঙ্খলা  এনে ছোট ছোট দল গঠন করতে।কোন শহরই বাদ গেল না।এই ভাবে একে একে মুরারী পুকুরের ছেলেরা এক ত্রিত হয়ে দেশের কাজে একনিষ্ঠ সেবক হব, প্রাণ পণ করে। তাদের সকলের মুখেই  মাতৃমন্ত্র বন্দেমাতরম।

স্বাধীনতার বাণী ছড়িয়ে দেবার জন্য এই সময় বন্ন্দেমাতরম নামে একটা ইংরাজী প ত্রিকা সম্পাদনাক  করতেন। ইংরেজ সরকার এই পত্রিকার এবং আলিপুর বোমার মামলার কারণে শ্রীঅরবিন্দকে গ্রেপ্তার  করেন। কিন্তু দুটি ক্ষেত্রেই অরবিন্দ  মুক্তি পান।এর আল্প কিছুদিন পর অরবিন্দ জানতে পারেন যে ইংরেজ সরকার তাঁকে বরাবরের জন্য বন্দী রাখার ব্যবস্থা করছেন।তখন ১৯১০ সালে তিনি বাংলা ছেড়ে প্রথমে চন্দনগর ও  পরে ফরাসি উপনিবেশ পন্ডিচেরিতে চলে যান।যে শ্রীঅরবিন্দ সুপ্ত ও মোহগ্রস্ত ভারতের তরু ন দের বুকে প্রেরণা জাগিয়ে দেশপ্রেমের বন্যা বইয়ে দেন তিনি আবার যোগ সাধনার মাধ্যমে মুক্তি পথের নিশানা তুলে ধরেন।
১৯১৪ সালে মীরা রিচার্ড নামে রক বিপ্লবী ফরাসী মহিলা শ্রী অরবিন্দের আশ্রমে আসেন এবং অরবিন্দের কাছে দীক্ষা নিলে পর তাঁর নাম হ য় শ্রীমা।তাঁরই ওপর আশ্রম পরিচালনার ভার পড়ত।আওরবিন্দ প ন্ডিচেরীতে থাকাকালীন যে সব গ্রন্থ রচনা করেন তার মধ্যে The Motherএবং ছয় খন্ডে সমাপ্ত দিব্য জীবন The Life Divine উল্লেখযোগ্য।
শ্রী অরবিন্দ ঘোষ পরবর্তী জীবনে আধ্যাত্মিক সাধনায় সিদ্ধিলাভ করে হয়েছিলেন ঋষিঅরবিন্দ।
ঋষি অরবিন্দ ১৯৫০সালের৪ঠা ডিসেম্বর  পরলোকগমন করেন।

কিশোরকবি সুকান্তের ৯৩তম জন্ম বার্ষিকীতে শ্রদ্ধাঞ্জলি।


মাত্র ২১ বছর বয়েসের মধ্যেই সুকান্ত ভট্টাচার্য  হয়ে উঠেছিল কিশোর কবি সুকান্ত।একুশ বছরের মধ্যে তিনি এমন কিছু কবিতা লিখেছেন সেগুলি এক সময় বিপ্লবের আগুনশিখা হিসাবে কাজ করেছে।সব সময় তিনি সামাজিক অব্যবস্থার বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়েছেন।
সুকান্ত ভট্টাচার্য, নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তান হওয়াতে তাঁকে প্রতি মুহূর্তে দারিদ্রতার সঙ্গে লড়াই করতে হয়েছে। ছোটবেলা থেকেই সমাজসেবার ক্ষেত্রে আত্মনিয়োগ করেছিলেন। সুকান্ত যখন কৈশোর অতিক্রম করেন,তখন সমগ্র ভারতবর্ষ এক রাজনৈতিক ক্রান্তিকালের মধ্যে দিয়ে এগিয়ে চলছিল।

কবির জীবনের বেশিরভাগ সময় কেটেছিল কলকাতার বেলেঘাটার ৩৪ হরমোহন ঘোষ লেনের বাড়ীতে। সেই বাড়িটি এখনো অক্ষত আছে। পাশের বাড়ীটিতে বসবাস করেন সুকান্তের একমাত্র জীবিত ভাই বিভাস ভট্টাচার্য। পশ্চিমবঙ্গের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য  সুকান্তের সম্পর্কিত ভাতুষ্পুত্র।
দক্ষিণ কলকাতার একটি গুরুত্ব পূর্ণ উড়াল পুল  কবি সুকান্তের স্বরণে নামে রাখা হয়েছে সুকান্ত সেতু। এটি  যাদবপুরকে (সুলেখার নিকটে) সন্তোষপুর, গরফা, পালবাজার, হাল্টুর সাথে সংযোগকারী রেলওয়ে ওভার ব্রিজ। এটি পূর্ব মহানগর বাইপাসের সাথে সরাসরি সংযোগ সরবরাহ করে।

প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়াশুনা করার সময় থেকেই সুকান্তের  ছড়া লেখা সবাইকে অবাক করে দিয়েছিল। সপ্তম শ্রেণীতে পড়ার সময় ছাত্রদের লেখা ও ছবি নিয়ে সপ্তমিকা নামে হাতে লেখা একটি পত্রিকা বার করেন।  ভাব, ভাষা, ছন্দ  সব আপন মন থেকেই আসত। তাঁর ছড়া ছিল নিপীড়িত মানুষদের কথা ভেবে লেখা যারা দুবেলা দুমুঠো খেতে পায় না।
মাতুলালয়ে সুকান্ত ১৯২৬ সালের ১৫ই আগস্ট কলকাতার মহিম হালদার স্ট্রিটের বাড়িতে জন্ম গ্রহন করেন। তাঁর পিতার নাম নিবারণচন্দ্র ও মাতার নাম ছিল সুনীতি দেবী। তাঁর পিতার সংসার ছিল অভাব অনটনে ভরা।১৯৪২ সালের ভারত ছাড় আন্দোলন,১৯৪৩ সালের দুর্ভিক্ষ, ১৯৪৪ সালের নেতাজীর কার্যকলাপ,১৯৪৫ এর নৌবিদ্রোহ এবং ১৯৪৬ সালের ডাক ও তার বিভাগের ধর্মঘট - প্রভৃতি অসংখ্য আন্দোলন ও বিদ্রোহে সারা ভারত উত্তাল। এই দ্রুত পরিবর্তন সুকান্তকে উদ্বেলিত করে। শুধু সাহিত্য সাধনা নয়,  নানা সমাজ সেবামূলক কাজও তিনি করতেন। এর মধ্যে সুকান্ত যোগ দেন ভারতের কম্যুনিস্ট পার্টিতে। তখন স্বাধীনতা নামে ছিল কম্যুনিস্ট পার্টির  দৈনিক পত্রিকা। এই পত্রিকায় 'কিশোর সভা' বিভাগের সম্পাদক ছিলেন তিনি।। এই বিভাগের সব ছড়াই তাঁর লেখা ছিল। তিনি কৃষ ক ও শ্রমিক আন্দোলনের সাথেও যুক্ত ছিলেন।তাঁর লেখা গান 'রানার' খুব ই জনপ্রিয়। বিদ্রোহ কবিতাটি আজও অনেককে অনুপ্রাণিত করে। দ্বিতীয় মহাযুদ্ধের সময় সুকান্ত অনেক গান রচনা করেন বিভ্রান্ত জনগণকে সতর্ক করবার জন্য।দেশের দুঃখদুর্দশা, অপমান নিয়ে তাঁর লেখা ছিল---

অবাক  পৃথিবী অবাক করলে তুমি।

জন্মেই দেখি ক্ষুব্ধ-স্বদেশ ভুমি।।

এ দেশে জন্মে পদাঘাতই শুধু পেলাম

অবাক পৃথিবী। সেলাম তোমাকে সেলাম।

তরুণ কবি সুকান্ত তাঁর কবিতায় রোষ,অভিমান, বেদনা ও বিদ্রোহ ফুটিয়ে তোলেন।তাঁর কতকগুলো কবিতা যথা রানার, সিঁড়ি,,হে মহাজীবন,বাংলা সাহিত্যের অমূল্য সম্পদ। তিনি প্রবন্ধ ও কয়েকটি গল্পও লিখেছিলেন।পরবর্তীকালে সুকান্তের সমস্ত কাব্য গ্রন্থ ও কতকগুলো চিঠিসহ 'সুকান্ত সমগ্র' প্রকাশিত হয়েছে।
আর্থিক অনটন ও পারিবারিক বিপর্যয়ের মধ্যে দিয়েই অতিবাহিত  হয়েছিল সুকান্তের জীবন। স্কুলের গন্ডি তিনি পার হতে পাতেরেন নি। কিন্তু অভাব অনটন সত্বেও তাঁর কলম থেমে থাকেনি।
তাঁর লেখা শেষ কবিতার বই 'ছাড়পত্র' যখন ছাপা হচ্ছিল সেই সময় সুকান্ত যক্ষ্মারোগে আক্রান্ত হন। 'ছাড়পত্র’ কাব্যগ্রন্থের ‘হে মহাজীবন’ কবিতাটিতে সুকান্ত 

পূর্ণিমার চাঁদকে ঝলসানো রুটির

সাথে তুলনা করেছেন। ১৯৪৭ সালের ১৩ই মে  যক্ষ্মারোগে কবি সুকান্ত পরলোক গমন করেন।


প্রিয় পাঠক–পাঠিকা ভালো লাগলে লাইক, কমেন্ট ও শেয়ার করুন। যে কোনো বিষয়ে জানা- অজানা তথ্য আমাদের সাথে আপনিও শেয়ার করতে পারেন।১০০০ শব্দের মধ্যে গুছিয়ে লিখে ছবি সহ মেল করুন  wonderlandcity.net@gmail.com ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।


30 April 2019

যেভাবে এলো শ্রমিকদের এই ঐতিহাসিক দিনটি।

দেশে বর্তমানে সপ্তদশ নির্বাচন পর্ব চলছে। ভোটের দিন রাজ্যগুলিতে ছুটি থাকছে। এর মধ্যে এসে গেল আর একটি ছুটির দিন। সেটা হল ১লা মে। ছুটি মানেই মজার দিন। কিন্তু এই দিনটির তাৎপর্য আমাদের ভুললে চলবে না।

এই দিনটি ঐতিহাসিক মে দিবস। শ্রমিকদের আত্মদানের দিবস। শ্রমিকরা তাদের ন্যায্য দাবিতে আন্দোলন গড়ে তোলে। দাবি ছিল দিনে ৮ ঘন্টা কাজ এবং  প্রাপ্য মজুরি। এই আন্দোলনের জন্য ১৮৬০ সালে শ্রমিকরা আমেরিকান ফেডারেশন অব লেবার নামে এক সংগঠন তৈরী করে। তাদের শ্লোগান ছিল সারা দিনে ৮ ঘন্টা কাজ, ৮ ঘন্টা বিশ্রাম, আর ৮ ঘন্টা শুধু নিজের জন্য।

এই আন্দোলনের জন্য তাদের প্রাণও দিতে হয়েছিল। ঘটনাটি ঘটেছিল ১৮৮৬ সালে। ১৮৮৪ সালে শ্রমিকদের দাবি ছিল ১লা মে, ১৮৮৬ সালের মধ্যে তাদের দাবি মেনে নিতে হবে। তাই ১লা মে যুক্তরাষ্ট্রের তিন লাখ শ্রমিক কাজ ছেড়ে রাস্তায় নেমে পড়লে আন্দোলন চরমে ওঠে। দুদিন পরে ৪ঠা মে, শ্রমিকরা সন্ধ্যের পর শিকাগোর হে-মার্কেট স্কয়ার নামে এক বাণিজ্যিক এলাকায় মিছিলের উদ্দেশ্যে জড়ো হন। পুলিশ এই শ্রমিকদের উপর অতর্কিতে হামলা শুরু করলে ১১ জন শ্রমিক শহীদ হন। তাছাড়া ছজন শ্রমিককে মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে ১৮৮৭ সালের ১১ই নভেম্বর উন্মুক্ত স্থানে ফাঁসি দেওয়া হয়।

শেষ পর্যন্ত শ্রমিকদের ‘দৈনিক আট ঘণ্টা কাজ’-এর দাবী আনুষ্ঠানিকভাবে স্বীকৃতি পায়। ১৮৮৯ সালের ১৪ই জুলাই ফ্রান্সে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক শ্রমিক সম্মেলনে ১ মে শ্রমিক দিবস হিসেবে ঘোষণা করা হয়। পরবর্তী বছর থেকে ১ মে বিশ্বব্যাপী পালন হয়ে আসছে ‘মে দিবস’ বা ‘আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবস’।

আজকের দিনে শ্রমিকদের অবস্থানটা অনেকটা পাল্টে গেছে। এখন তাদের ৮ ঘন্টার বেশী কাজ করতে হয় এবং অনেক ক্ষেত্রে ন্যায্য মজুরিও জোটেনা। স্থায়ী শ্রমিকের বদলে অস্থায়ী শ্রমিকদের নিয়ে কাজ চলছে। সেখানে নেই কাজের কোন নিরাপত্তা। আজকের দিনে শ্রমিক আন্দোলনের রূপটাই বদলে গেছে।

প্রিয় পাঠক–পাঠিকা ভালো লাগলে লাইক, কমেন্ট ও শেয়ার করুন। যে কোনো বিষয়ে জানা- অজানা তথ্য আমাদের সাথে আপনিও শেয়ার করতে পারেন।১০০০ শব্দের মধ্যে গুছিয়ে লিখে ছবি সহ মেইল করুন  wonderlandcity.net@gmail.com ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।

20 April 2019

১০০ বছর হয়ে গেল জালিয়ানওয়ালা বাগের বালক ও শিশু সহ নিরপারাধ নারী পুরুষদের উপর ব্রিটিশ শাসকদের নিশংস হত্যাকান্ড।


প্রবল রাষ্ট্রক্ষমতা অসহায় মানুষের উপআর অত্যাচার করলে সবাইকে রুখে দাঁড়াতে হবে - এই বার্তাটাই দিয়ে গেল জালিয়ানওয়ালাবাগ। শোনা কথা অনাথ কিশোর উধম সিংহ সেদিন আহত হয়ে সারা রাত পড়ে থাকার পর সকালে এক মুঠো রক্তাক্ত মাটি তুলে ফিরে এসে শপথ নিয়ে ছিল এই হত্যাকান্ডের প্রতিশোধ নেবার। শুধু উধম সিংহ নয় সমগ্র ভারতবাসী শপথ নিল প্রতিশোধ নেবার। এই হত্যাকান্ডের বিরুদ্ধে সারা দেশে এমনকি সারা বিশ্বে নিন্দা ও সমালোচনার বন্যা বয়ে গেল। গান্ধিজী তার ইয়ং ইন্ডিয়া পত্রিকায় লেখেন এই শয়তান সরকারের সংশোধন সম্ভব নয়, একে ধ্বংস করতেই হবে। কবিমন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরও চুপ থাকতে পারেন নি। গ্রেফতারের পরোয়ানা না করে তিনি চেয়েছিলেন অমৃতসরে গান্ধিজীর সাথে সভা করতে। কবি নিজের নাইটহুড প্রত্যাখ্যানের চিঠি লিখে  করে পাঠালেন বড়লাটের কাছে। নাইটহুড প্রত্যাখ্যান-পত্রে লর্ড চেমসফোর্ডকে রবীন্দ্রনাথ লিখেছিলেন, "আমার এই প্রতিবাদ আমার আতঙ্কিত দেশবাসীর মৌনযন্ত্রণার অভিব্যক্তি।" আর্ত মানুষের পাশে দাঁড়াতে মানব দরদী ইংরেজ সাহেব দীনবন্ধু এন্ড্রুজ পাঞ্জাবে যেতে চেয়েছিলেন কিন্তু ইংরেজ সরকার তাঁকে পাঞ্জাবে যেতে দিল না। এটাই হল ভারতে ব্রিটিশ সাম্রাজের শেষের শুরু।

১০০ বছর হয়ে গেল জালিয়ানওয়ালা বাগের বালক ও শিশু সহ নিরপারাধ নারী পুরুষদের উপর ব্রিটিশ শাসকদের নিশংস হত্যাকান্ড। ১৯১৯ সালের ১৩ই এপ্রিল পাঞ্জাবের অমৃতসর শহরে ইংরেজ সেনানায়ক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল রেগিনাল্ড ডায়ারের নির্দেশে এই হত্যাকাণ্ড ঘটে। ব্রিগেডিয়ার রেগিনাল্ড ডায়ার জন্মেছিলেন এই পাঞ্জাবে ভারতের মাটিতেই। এই হত্যাকান্ডের প্রস্তুতি শুরু হয়েছিল অনেক আগে থেকেই।

১৯১৪ সালের জুলাই মাসে প্রথম বিশ্বযুদ্ধ শুরু হলে যুদ্ধে ব্রিটিশ ভারতীয় সেনাবাহিনীও অংশ নিয়েছিলো। ইংরেজ সরকার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল, যুদ্ধে অংশ নিলে পরাধীন দেশগুলোকে স্বায়ত্তশাসন দেওয়া হবে। এই কথায় ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনের অগ্রদূত  গান্ধিজী সহ অনেকেই যুদ্ধে অংশ গ্রহণ করে যুদ্ধে ভারতবাসীকে উৎসাহিত করেন। প্রথম বিশ্বযুদ্ধে প্রায় ১ লক্ষ ভারতীয় সৈন্য মারা যায় তার মধ্যে অধিকাংশই ছিল পাঞ্জাবের।

পাঞ্জাবের দন্ডমুন্ডের কর্তা স্যর মাইকেল ও'ডোয়্যার ৬ বছর ধরে কড়া শাসনে বেঁধে রেখেছিল পঞ্চনদীর দেশকে। প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময় নানা সুবিধার লোভ দেখিয়ে শুধু পাঞ্জাব থেকেই প্রায় ৫ লাখ পুরুষকে যুদ্ধে পাঠানো গিয়েছিল। ১৯১৭ সালের দিকে আর কেউ যুদ্ধে নাম লেখাতে চাইল না। শুরু হল অত্যাচার। মিলিটারিতে নাম লেখাতে শুরু হল জোর জবরদস্তি এবং শাস্তি। এই বছর হয় অতি বৃষ্টি, সাথে ম্যালেরিয়া আর প্লেগ মহামারি। এই সময় ব্রিটিশ সরকার দমন পীড়নের মাধ্যমে সকল প্রকার গণতান্ত্রিক আন্দোলনের কন্ঠরোধ এবং সন্ত্রাসবাদ দমনে সচেষ্ট হয়। এই উদ্দেশ্যে ব্রিটিশ সরকার বিচারপতি রাউলাটের নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের ‘সিডিশন কমিশন’ গঠন করে। ভারতীয়দের হিংসাত্মক আন্দোলন থেকে ব্রিটিশ সাম্রাজ্যকে রক্ষা করতে কমিশন কতকগুলি সুপারিশ করে।

১৯১৮ সালের শেষের দিকে প্রথম বিশ্বযুদ্ধের অবসান ঘটে। এই যুদ্ধে জার্মানি ইংল্যান্ড তথা মিত্রবাহিনীর হাতে পরাস্ত হয়। কিন্তু ভারতীয়দের প্রতি ইংরেজ সরকারের নীতিতে কোন রকম পরিবর্তন দেখা যায়নি। যেসব সৈন্য যুদ্ধে অংশ নিয়েছিল তাদেরকে বেকার করে নিজেদের গ্রামে ফেরত পাঠিয়ে দেওয়া হয়।  ভারতবাসীর মনে সন্দেহ ঘনীভূত হতে থাকে। এই সন্দেহ থেকেই ক্ষোভ এবং ইংরেজ বিরোধী মনোভাবের সূচনা ঘটে। এই বছর অনাবৃষ্টি,অর্থনৈতিক মন্দা এবং দুর্ভিক্ষ দেখা দেয়। ইনফ্লুয়েঞ্জা মহামারিতে এক কোটির বেশি মানুষের মৃত্যু হয়।

১৯১৯ সালের ১৮ই মার্চ  সিডিশন কমিশনের সুপারিশ সমূহের ওপর ভিত্তি করে ব্রিটিশ সরকার এক দমনমূলক আইন চালু করে। এই আইনই সাধারণভাবে কুখ্যাত ‘রাউলাট আইন’ নামে পরিচিত। এই আইনে জনগণের স্বাধীনতা ও অধিকার কেড়ে নেওয়া হয়।
ভারতীয়দের জাতীয় স্বার্থবিরোধী এই আইনের বিরুদ্ধে চারিদিকে তীব্র প্রতিবাদ গড়ে ওঠে। কেন্দ্রীয় আইন সভার সমস্ত ভারতীয় সদস্য প্রতিবাদে গর্জে ওঠেন । মদনমোহন মালাব্য, মহম্মদ আলি জিন্নাহ, মাজহার উল হক আইন পরিষদের সদস্য পদে ইস্তফা দেন। চরমপন্থীরা তো বটেই সুরেন্দ্রনাথ সহ সকল নরমপন্থী নেতা এর বিরুদ্ধে গর্জে ওঠেন। গান্ধিজী সর্বভারতীয় আন্দোলনের ডাক দেন।

১৯১৯ সালের মার্চ মাসে গান্ধিজীর ডাকে দেশব্যাপী বিক্ষোভ হরতাল হয় ও জনসভা অনুষ্ঠিত হয়। গান্ধিজী সত্যাগ্রহের হুমকি দেন। কুখ্যাত রাওলাট আইনের বিরুদ্ধে স্থানীয় কংগেস নেতা সইফুদ্দিন কিচলু ও সত্যপালের শান্তিপূর্ণ প্রতিরোধ এবং হিন্দু-মুসলমান- শিখের অভূতপূর্ব যোগদান ইংরেজ প্রশাসকদের খুবই চিন্তা ও অস্বস্তিতে ফেলেছিল। এই দুই নেতা রাওলাট-এর নামে সদ্য চালু হওয়া কালা কানুনের স্বরূপ পঞ্জাববাসীকে চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখাচ্ছিলেন। এই দুই নেতার বিরুদ্ধে ফতোয়া জারি করা হল কোনো জনসভায় ভাষণ না দেওয়ার।

এপ্রিল মাসে গান্ধিজী সত্যাগ্রহ তথা রক্তপতহীন আন্দোলনের মাধ্যমে এর রাওলাট আইনের প্রতিবাদের আয়োজন করেন। ৬ই এপ্রিল বিরাট এক জনসমাবেশে সইফুদ্দিন কিচলু ও সত্যপালের বিরুদ্ধে ফতোয়া প্রত্যাহারের দাবি ওঠে। পুরো অমৃতসর শহর স্তব্ধ করে হরতাল পালিত হয়।

৭ই এপ্রিল পাঞ্জাব যাওয়ার পথে গান্ধিজীকে গ্রেফতার করা হয়। এর প্রতিবাদে আহমেদাবাদের শিল্প শ্রমিক এবং পাঞ্জাবের সাধারণ জনগণ বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠে। সরকার গান্ধিজীকে মুক্তি দিতে বাধ্য হয়। এর পরও বিক্ষোভ কমেনি। ধর্মঘটে এবং বিক্ষোভের লক্ষ্য হয়ে দাড়ায় সরকারী দপ্তর এবং যানবাহন। সাদা চামড়ার ইউরোপীয় কর্মকর্তা এবং অধিবাসীদের উপরও ভারতীয়রা ক্ষুব্ধ হয়ে উঠে। তাদের উপরও আক্রমণ করা হয়। মোম্বাইতে জনতা পুলিশের সংঘর্ষ শুরু হয়।
এপ্রিল মাসের গোড়ায় রাওলাট আইনের বিরুদ্ধে শান্তিপূর্ণ সভা, হরতাল, হিন্দু- মুসলমান সম্প্রীতির আবহ ব্রিটিশ শাসকদের ক্রমশই বিচলিত করে তুলছিল।  ৮ই এপ্রিল ডেপুটি কমিশনার আরভিং লেফটেনান্ট গভর্নর মাইকেল ও'ডোয়্যার কে চিঠি লিখে মেশিনগান, সাঁজোয়া গাড়ি আর বাড়তি সেনা চেয়ে নেন।

১০ই এপ্রিল ১৯১৯ সালে সইফুদ্দিন কিচলু ও সত্যপালকে গ্রেফতার করে নিয়ে যাওয়া হয় অজানা গন্তব্যে। এই খবর ছড়িয়ে পরার সাথে সাথে ক্ষুব্ধ জনতা পথে নামলেন। আগুন জ্বলল অমৃতসর শহরে। মানুষ নেতার মুক্তির দাবিতে হাঁটল শহরের ডেপুটি কমিশনারের সাথে দেখা করতে চেয়ে। মিলিটারি পিকেট তাদের পথ আটকায়। ব্যারিকেট ভেঙ্গে এগোনের চেস্টা করলে শুরু হয় গন্ডগোল। জনতার উপর গুলি চললে মারা যায় ২০-৩০ জন। এরপর জনতাকে আর আটকানো গেল না। তাদের একাংশ উন্মত্ত হয়ে আক্রমণ করল টাউন হল, দুটো বিদেশী ব্যাংক, টেলিগ্রাফ আর টেলিফোন এক্সচেঞ্জ। মারমুখী জনতার হাতে মারা গেল পাঁচজন সাহেব। অমৃতসর শহরে ১৩০ জন ইংরেজ নর-নারীকে সুরক্ষা দেওয়ার পাশাপাশি নেটিভদের শিক্ষা দেওয়ার বন্দোবস্ত করতে শহটাকে মিলিটারির হাতে তুলে দেওয়া হয়।

পরের দিন ১১ই এপ্রিল সকাল থেকেই অমৃতসরের মাথার উপর চক্কর মারছিল যুদ্ধ বিমান। রাস্তায় কারফিউ ও সেনা টহল। আগের দিনের ঘটনায় মৃতদের দেহ সতকারে নানা রকম নিষেধাজ্ঞা সহ চলল যথেচ্ছ ধরপাকড়। রাতে ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ডায়ার অমৃতসরে পৌঁছে শহরের  দায়িত্ব নিলেন। সে দিন গভীর রাতে বিদ্যুৎহীন করে দেওয়া হল অমৃতসর শহরটাকে। জল সরবরাহ বন্ধ করে দেওয়া হল।

১২ই এপ্রিল সকাল থেকেই অমৃতসরের মাথার যুদ্ধ বিমান নজর রাখছিল শহরের উপর। শহরের অলিগলিতে সেনা নামল। ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ডায়ার দুটি সাঁজোয়া গাড়ী নিয়ে বেরোলেন শহর পরিদর্শনে। বিনা অনুমতিতে শহরে প্রবেশ বা বার হওয়া নিষিদ্ধ। মিলিটারি পরাক্রম দেখিয়ে অমৃতসর শহর দখল হয়ে গেল। নোটিশ ঝুলিয়ে শহরের কিছু জায়গায় মিটিং- জমায়েত নিষিদ্ধ করা হল।

১৩ই এপ্রিল, ১৯১৯ সালের সেই অভিশপ্ত দিন। এদিন শহরের কিছু গণ্যমান্য ব্যক্তি ঠিক করলেন বিকেলে একটা শান্তিপূর্ণ মিটিং করে কিচলু ও সত্যপালের মুক্তির দাবি তুলবেন। তার সাথে ১০ তারিখের অনভিপ্রেত ঘটনার পর সাধারণ মানুষের চরম হয়রানি ও যথেচ্ছ প্রেফতারের বিরুদ্ধেও কথা হবে। সেদিন ছিল বৈশাখী মেলা উৎসবও। স্বর্ণমন্দিরের কাছাকাছি একটি বাগান জালিয়ানওয়ালা বাগে মিটিং এর স্থান ঠিক হয়। সেখানে মিটিং নিষেধের কোনো নোটিশ ছিল না। চারিদিকে  পুলিশের পাহারা থাকলেও বাগান চত্বরে ঢোকার মুখে ভিড় আটকানোর চেষ্টা হয়নি। সেখানে জমা হয়েছিল প্রায় ১০ হাজার জনতা মিটিং শুরু হলে ডায়ার পরিকল্পনা করে ওই চত্বরে একমাত্র সরু যাতায়াতের গলির মুখে দুটো সাঁজোয়া গাড়ী লাগায়। রাস্তার দুধারে বসে গেল পুলিশ পিকেট। আকাশ পথে যুদ্ধ বিমান ঘটনা স্থল পরিদর্শন করে নিল। তার পরেই ব্রিগেডিয়ার জেনারেলের নির্দেশে হাঁটু-গেড়ে বসা বালুচ ও গোর্খা সৈন্যরা শুরু করল গুলিবর্ষণ। বালক ও শিশু সহ নিরপারাধ নারী পুরুষদের উপর গুলি চলল ১৬০০ রাউন্ডের বেশী। বাগান থেকে বেরোনোর রাস্তা বন্ধ। প্রাণ বাঁচাতে বাগানের দেওয়াল টপকানোর অনেকে চেষ্টা করে। বাগানের মাঝখানে কুয়োতে অনেকে আবার ঝাঁপ দিয়ে গুলি এড়াতে চেয়েছিল। ১০ মিনিট ধরে চলে এই হত্যাকান্ড। সেদিন সরকারী হিসাবে মারা যায় ৩৭৯ জন এবং আহতের সংখ্যা ছিল ১২০০। কিন্তু বেসরকারী হিসাবে নিহতের সংখ্যা ১০০০ ছাড়িয়ে গিয়েছিল এবং আহতের সংখ্যা ছিল অনেক বেশী।
সন্ধ্যের পর ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ডায়ার ক্যাম্পে ফিরে বিশ্রাম নিয়ে আবার বেরোলেন রাত আটটার পর শহরে টহল দিতে। দেখে নিতে কেউ বাগানের দিকে যাচ্ছে কিনা মৃত প্রিয়জনদের খোঁজে।

গোটা পঞ্জাব জুড়ে চালু হল সামরিক শাসন। চলল ২ মাস ধরে ধরপাকড় ও অসহ্য নির্যাতন সাথে হেনস্থা। এই হত্যাকান্ড ব্রিটিশ সরকার সম্বন্ধে ভারতীয়দের মোহভঙ্গ ঘটল। ব্রিটিশ সাম্রাজ্যবাদের নগ্ন রূপ সারা বিশ্বের কাছে উন্মোচিত হয়ে গিয়েছিল। এর পরে গান্ধিজী দেশে বৃহত্তর গণ আন্দোলনের প্রস্তুতি নেন যার পরিণত রূপ ছিল অহিংসা আন্দোলন।

নারকীয় এই গণহত্যা ভারতে ব্রিটিশ শাসনের ইতিহাসে সবচেয়ে কলঙ্কজনক অধ্যায়। সেই সময় এন্ড্রুজ সাহেব ছিলেন শান্তিনিকেতনে। নিপীড়িত মানুষের পাশে দাঁড়াবার জন্য তিনি পাঞ্জাব যাবার মনস্থির করেন। কিন্তু ইংরেজ সরকার মানব দরদী ইংরেজ সাহেব দীনবন্ধু এন্ড্রুজকে পাঞ্জাবে যেতে দিল না। এন্ড্রুজ যখন অমৃতসর রেল স্টেশনে পৌঁছান তখন তাঁকে আটক করে দিল্লিতে ফেরত পাঠিয়ে দেওয়া হয়।  বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথও এই হত্যাকান্ডে চুপ থাকতে পারেন নি। তিনি এন্ড্রুজকে গান্ধিজীর কাছে পাঠান যাতে তিনি এবং গান্ধিজী অমৃতসরে গিয়ে আর্ত মানুষদের পাশে দাঁড়াতে পারেন। কিন্তু গান্ধিজী সেই সময় অমৃতসরে গিয়ে সরকারকে বিব্রত করতে চান নি।
প্রতিবাদী রবীন্দ্রনাথ ৩০শে মে সারা রাত জেগে কবি নিজের নাইটহুড প্রত্যাখ্যানের চিঠি লিখে ৩১ মে ভোরবেলা তার করে পাঠালেন বড়লাটের কাছে। নাইটহুড প্রত্যাখ্যান-পত্রে লর্ড চেমসফোর্ডকে রবীন্দ্রনাথ লিখেছিলেন, "আমার এই প্রতিবাদ আমার আতঙ্কিত দেশবাসীর মৌনযন্ত্রণার অভিব্যক্তি।" এই পত্রের প্রতিলিপি লন্ডনের শহরে বিলি হয়।

ব্রিটিশ সরকারের উপর চাপ বাড়তে থাকে। ১০২০ সালের মার্চ মাসে জেনারেল ডায়ারকে পদত্যাগ করিয়ে ইংল্যান্ডে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। ভারত ও ইংল্যান্ডে ডায়ার খুবই নিন্দিত হয়েছিলেন। কিন্তু কিছু ব্রিটিশ শাসক দলের কাছে বীর সম্মান পান। ডায়ার পরে নিজে তার কাজের জন্য অনুশোচনা করতেন।
জীবনের শেষ দিন গুলি ডায়ারের ভালো কাটেনি। একের পর এক স্ট্রোকের  কারণে বেশ কিছুদিন  পক্ষাঘাত এবং বাকরোধে আক্রান্ত হয়ে শয্যাশায়ী  ছিলেন। ১৯২৭ সালে ইংল্যান্ডের সমারসেট কাউন্ট্রিতে সেরিব্রাল হেমারেজে তার মৃত্যু হয়। মৃত্যুশয্যায় তবে তিনি বলেছিলেন -
"অমৃতসরের পরিস্থিতি যারা জানত তাদের অনেকেই বলেছেন আমি ঠিক করেছি ... আবার অনেকেই বলেছেন আমি ভুল করেছি। আমি মরে আমার সৃষ্টিকর্তার কাছ থেকে জানতে চাইব আমি ঠিক না বেঠিক"।

কথিত আছে জালিয়ানওয়ালা বাগের সভায় অনাথ কিশোর উধম সিংহ আহত হয়ে সারা রাত পড়ে থাকার পর সকালে এক মুঠো রক্তাক্ত মাটি তুলে ফিরে এসে শপথ নিয়ে ছিল এই হত্যাকান্ডের প্রতিশোধ নেবার। একুশ বছর পর ১৯৪০ সালে এই শপথ আংশিক ভাবে পূরণ করেন। নাম পাল্টে আফ্রিকা, আমেরিকা ও ইউরোপ হয়ে তিনি লন্ডনে পৌঁছান। মাইকেল ও'ডোয়্যার লন্ডনের সভায় বক্তৃতা দেবার সময় উধম সিংহ সামনে থেকে তাকে গুলি করে হত্যা করে। দ্রুত বিচারের পর উধম সিংহের ফাঁসি হয়।  জালিয়ানওয়ালা বাগে তাঁর চিতাভষ্ম রাখা হয় এবং সেখানে তাঁর একটা মূর্তিও বসেছে।

প্রিয় পাঠক–পাঠিকা ভালো লাগলে লাইক, কমেন্ট ও শেয়ার করুন। যে কোনো বিষয়ে জানা- অজানা তথ্য আমাদের সাথে আপনিও শেয়ার করতে পারেন।১০০০ শব্দের মধ্যে গুছিয়ে লিখে ছবি সহ মেইল করুন  wonderlandcity.net@gmail.com ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।

17 April 2019

আজ ১৭ই এপ্রিল, রাজনীতিবিদ, দার্শনিক ও শিক্ষক ডঃ সর্বপল্লী রাধাকৃষ্ণণের ৪৪তম মৃত্যুবার্ষিকীতে  বিনম্র শ্রদ্ধা জানাই।

ডঃ সর্বপল্লী রাধাকৃষ্ণণ ৫ই সেপ্টেম্বর, ১৮৮৮ সালে তামিলনাডুর তিরুট্টানিতে এক দরিদ্র ব্রাহ্মণ পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। অভাব সেই পরিবারের নিত্য সঙ্গী। তবুও বাবা মা চেয়েছিলেন ছেলেটিকে পড়াশুনা শিখিয়ে মানুষ করতে হবে। ছোটবেলা থেকেই রাধাকৃষ্ণণের পড়াশুনার প্রতি ছিল প্রবল আগ্রহ। ওঁনার বাবা মা ছিলেন ঐতিহ্যগতভাবে ধর্ম বিশ্বাসী এবং পরিবারের সবাই হিন্দু ধর্মের রীতিনীতি নিষ্ঠার সাথে মেনে চলত।

যখন তাঁর বয়স ৮ তখন তিনি ভর্তি হন তিরুপতি শহরের লুথেরান মিশনারী বিদ্যালয়ে। মিশনারী পরিবেশে পড়াশুনা করার ফলে বাইবেল সম্বন্ধে তার আগ্রহ ছিল। জীবনে কোনও পরীক্ষায় দ্বিতীয় হননি। বিভিন্ন বৃত্তির মাধ্যমে তাঁর ছাত্রজীবন এগিয়ে চলে। ১৯০৫ সালে তিনি মাদ্রাজ খ্রিস্টান কলেজ থেকে দর্শনে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন। তার বিষয় ছিল ‘বেদান্ত দর্শনের বিমূর্ত পূর্বকল্পনা’। ২১ বছর বয়সে এম এ পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন।

১৯০৯ সালে  মাদ্রাজ প্রেসিডেন্সি কলেজে অধ্যাপনা শুরু করেন। এখানে অধ্যাপনা করেন ৯ বছর। সাথে চলত প্রাচীন হিন্দু শাস্ত্র দর্শন নিয়ে গর্বেষণা। ১৯২১ সালে বাংলার বাঘ আশুতোষ মুখোপাধ্যায়ের আমন্ত্রনে কলাকাতায় আসেন এবং কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপনা শুরু করেন। ১৯৩৬ থেকে ১৯৩৯ পর্যন্ত অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপনা করেন।  দেশ–বিদেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তিনি বারবার অধ্যাপনার জন্য আমন্ত্রিত হয়েছেন।

ছাত্রদের কাছে উনি ছিলেন খুব জনপ্রিয় এবং সব ছাত্ররাই তাঁকে তাদের পথ প্রদর্শক এবং ফিলোজফার হিসাবে মানত। ১৯২১ সালে মাইশোর বিশ্ববিদ্যালয় ছেড়ে যখন কলকাতা বিশ্ববদ্যালয়ের উদ্দেশ্যে রওনা হন তখন ছাত্ররা ফুল দিয়ে সাজানো বাহনে কলেজ ক্যাম্পাস থেকে রেলওয়ে স্টেশন পর্যন্ত টেনে নিয়ে গিয়েছিল।

রাজনীতিবিদ, দার্শনিক ও অধ্যাপক এই শান্ত মানুষটি ছাত্রজীবনে অতি মেধাবী ছিলেন।  বিশ্বের দরবারে তিনি অতি জনপ্রিয় দার্শনিক অধ্যাপক হিসাবেও পরিচিত ছিলেন। ১৯৩১ সালে তাঁকে ব্রিটিশ নাইটহুডে সম্মানিত করা হয়। ১৯৫৪তে ভারতরত্ন উপাধি পান।

তিনি স্বাধীন ভারতের প্রথম রাজ্যসভার চেয়ারম্যান, উপরাষ্ট্রপতি (১৯৫২-১৯৬২) এবং দ্বিতীয় রাষ্ট্রপতি (১৯৬২-৬৭) ছিলেন।

তিনি বিভিন্ন উল্লেখযোগ্য পত্রিকায় লিখতেন। ১৯১৮ সালে তিনি লেখেন তাঁর প্রথম গ্রন্থ ‘ দ্য ফিলোজফি অফ রবীন্দ্রনাথ টেগোর’। দ্বিতীয় গ্রন্থ ‘দ্য রেন অফ রিলিজিয়ন ইন কনটেমপোরারি ফিলোজফি’ প্রকাশিত হয় ১৯২০সালে।

শিক্ষকদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে এবং তাঁদের অবদানকে স্মরণ করার জন্য পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে শিক্ষক দিবস' পালিত হয়। এই দিবসটি বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ভিন্ন ভিন্ন দিনে পালিত হয়ে থাকে। তবে বিশ্বের অধিকাংশ দেশে ৫ অক্টোবর তারিখে বিশ্ব শিক্ষক দিবস নামে পালিত হয়।  ডঃ সর্বপল্লী রাধাকৃষ্ণণের রাষ্ট্রপতি হওয়ার পর তাঁর জন্মদিন ৫ই সেপ্টেম্বরে ভারতে শিক্ষক দিবস হিসাবে পালিত হয়।

প্রিয় পাঠক–পাঠিকা ভালো লাগলে লাইক, কমেন্ট ও শেয়ার করুন। যে কোনো বিষয়ে জানা- অজানা তথ্য আমাদের সাথে আপনিও শেয়ার করতে পারেন।১০০০ শব্দের মধ্যে গুছিয়ে লিখে ছবি সহ মেইল করুন  wonderlandcity.net@gmail.com ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।

14 April 2019

আজ ১৪ই এপ্রিল ডঃ ভীমরাও রামজি আম্বেডকরের ১২৮তম জন্মবার্ষিকী আমাদের শ্রদ্ধাঞ্জলি।


ডঃ ভীমরাও রামজি আম্বেডকর ছিলেন ভারতীয় সংবিধান রচয়িতা, সমাজ সংস্কারক, রাজনীতিবিদ, হরিজনবন্ধু, লেখক, বৌদ্ধধর্ম সংস্কারক, ভারতীয় প্রজাতন্ত্রের রূপকার। তিনি বাবাসাহেব  নামেও পরিচিত ছিলেন।

বোম্বের এলফিনস্টন হাই স্কুল, শিক্ষক একটি সমস্যা সমাধানের জন্য ক্লাসের পেছনের বেঞ্চে বসা একজন ছাত্রকে ডাকলেন। ছাত্রটি  ব্ল্যাকবোর্ডের দিকে এগিয়ে গেলে  মুহূর্তের মধ্যে  পুরো ক্লাসে হুড়োহুড়ি শুরু হয়ে গেল। অন্যান্য ছাত্ররা তাদের টিফিন বক্স রাখতো ব্ল্যাকবোর্ডের পেছনে। ছাত্রটি ব্ল্যাকবোর্ডের কাছে আসার আগেই সবাই তাড়াহুড়ো করে নিজেদের টিফিন বক্স সরাতে লাগলো। কারণ ছাত্রটি কাছাকাছি আসলে যে, তাদের খাবার অপবিত্র হয়ে যাবে।

ছাত্রটির পরিবার দাপোলি থেকে সতরে চলে আসে। ছাত্রটি ক্লাসের ভেতরে ঢোকার সুযোগ পেলেও বেঞ্চিতে বসতে পারতেন না। ক্লাসের এক কোনে নিজের নিয়ে আসা পাটের বস্তাটি বিছিয়ে বসে পড়তেন। দিনশেষে আবার সেটি নিয়ে যেতেন সঙ্গে করে। কারণ স্কুল পরিষ্কার করা কর্মচারীও সেটি স্পর্শ করতেন না। স্কুলের ট্যাপ খুলে বা জগ থেকে তার জল খাবার অনুমতি ছিলো না। কারণ তাঁর ছোঁয়ায় এসব অপবিত্র হয়ে যাবে। কেবল যখন উচ্চ বর্ণের কেউ ট্যাপ খুলে দিত বা জগ থেকে জল ফেলত তখনই তার জল খাবার সুযোগ মিলত। এ ‘নিচু’ কাজটার দায়ভার সাধারণত স্কুলের পিয়নের কাঁধেই পড়তো। সে জগ থেকে জল ঢালত ছাত্রটির জন্য। অন্য কেউতো কাছেই ঘেঁষতো না তেমন। যেদিন পিয়ন থাকতো না, সেদিন তাকে তৃষ্ণার্ত হয়েই কাটাতে হতো।

কী প্রচণ্ড ঘৃণা! কেন? কারণ ছাত্রটি যে জন্মেছেন নিন্মবর্ণের পরিবারে। মহর পরিবারে জন্ম নেওয়া একজন দলিত তিনি। এতক্ষণ যে ছাত্রটির কথা বলেছি তার পুরো নাম ভীমরাও রামজি আম্বেডকর। দলিতরা যাকে ভালোবেসে ‘বাবা সাহেব’ বলে ডাকেন। পরবর্তীকালে যিনি হয়ে উঠেছিলেন তুখোড় অর্থনীতিবিদ ও দার্শনিক। তিনি হয়েছিলেন ভারতের প্রথম আইনমন্ত্রী, ভারতীয় সংবিধানের মুখ্য স্থপতি। তবে সবচেয়ে আগে তার যে পরিচয়টি দেয়া দরকার তা হলো, বর্ণবৈষম্য বিরোধী আন্দোলনের অন্যতম পুরোধা ব্যক্তিত্ব। ১৯৯০ সালে ভারতের সর্বোচ্চ বেসামরিক উপাধি ‘ভারতরত্ন’-তে ভূষিত করা হয় তাকে।

ভীমরাও রামজি আম্বেডকর জন্মেছিলেন ১৮৯১ সালের ১৪ই এপ্রিল ভারতের মধ্যপ্রদেশের মোহ অঞ্চলে। রামজি মালোজি শাকপাল ও ভীমাবাই এর চতুর্দশ সন্তান ছিলেন তিনি। তার পূর্বপুরুষদের অধিকাংশই ব্রিটিশ সেনাবাহিনীতে কর্মরত ছিলেন। মূলত পিতার ইচ্ছাতেই তার স্কুলের পাঠ শুরু হয়। সেখানে দলিত হওয়ার কারণে তিনি শৈশবেই যে তীব্র বিদ্ধেষের মুখোমুখি হয়েছেন তা উপরের ঘটনাগুলো থেকে কিছুটা টের পাওয়া যায়।

এই বিদ্ধেষ শুধু মাত্র স্কুলেই সীমাবদ্ধ ছিল না। স্কুলের বাইরেও এ হেনস্থা তাঁর পিছু ছাড়েনি। তারা যে পাড়ায় থাকতেন যেখানে অধিকাংশই উচ্চবর্ণের হিন্দু ছিল। সেখানে কোনো নাপিত তাদের চুল কেটে দিতো না, কোনো ধোপা তাদের কাপড় কেঁচে দিতো না। তার বড় বোনকেই তার ও তার ভাইদের চুল কেটে দিতে হতো।
তীব্র হতাশা থেকেই জন্ম হয় সমাজ সংস্কারকদের, বিপ্লবীদের। কেননা এ হতাশাই এনে দেয় সমাজ বদলানোর জিদ। যা ভি আর আম্বেডকরের মনেও তীব্রভাবে জেগেছিল। তিনি তার জীবনের মিশন হিসেবে নিয়েছিলেন বর্ণবৈষম্য দূরীকরণকে। দলিতদের মুখপাত্র হয়ে উঠেছিলেন গোটা ভারতে। তাদের স্বপ্ন দেখিয়েছিলেন এক সুন্দর ভবিষ্যতের। আর এসব কারণেই তিনি দলিতদের কাছে হয়ে উঠেছিলেন ভালোবাসার ‘বাবা সাহেব’।

১৯০৩ সালে আম্বেডকর মাত্র ১২ বছর বয়সে হিন্দু রীতিতেই ৯ বৎসরের দাপোলির মেয়ে “রামাবাই”এর সাথে হয়। বিয়ের পর সপরিবারে তিনি মুম্বাইয়ে চলে আসেন। যেখানেই আম্বেডকর এলফিন্‌স্টোন রাস্তার পাশের সরকারি বিদ্যালয়ের প্রথম অস্পৃশ্য  ছাত্র হিসাবে ভর্তি হন।

ভীমরাও রামজি আম্বেডকর প্রথমে শিখধর্মের প্রতি আকৃষ্ট হলেও শিখদের সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক টেকেনি। ১৪ই অক্টোবর ১৯৫৬ সালে তিনি নাগপুরে লক্ষ লক্ষ অনুগামীসহ তিনি বৌদ্ধধর্ম গ্রহণ করেন।

আম্বেডকর ডায়াবেটিস রোগে শারীরিক অবনতির জন্য ১৯৫৪ সালে জুন থেকে প্রায় ৫-৬ মাস তিনি শয্যাগত ছিলেন ও তাঁর দৃষ্টিশক্তি হারান। তিনি ৬ই ডিসেম্বর ১৯৫৬ সালে তাঁর দিল্লিতে বাড়িতে ঘুমন্ত অবস্থায় চির নিদ্রায় শায়িত হন।

প্রিয় পাঠক–পাঠিকা ভালো লাগলে লাইক, কমেন্ট ও শেয়ার করুন। যে কোনো বিষয়ে জানা- অজানা তথ্য আমাদের সাথে আপনিও শেয়ার করতে পারেন।১০০০ শব্দের মধ্যে গুছিয়ে লিখে ছবি সহ মেইল করুন  wonderlandcity.net@gmail.com ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।

দূরদর্শী দার্শনিক- রাজনীতিক- সমাজতাত্ত্বিক রাহুল সাংকৃত্যায়নের ৫৬তম মৃত্যুবার্ষিকীতে আমাদের শ্রদ্ধাঞ্জলি।


রাহুল সাংকৃত্যায়ন শুধু পৃথিবী পরিব্রাজকই ছিলেন না, বিশ্বের জ্ঞানরাজ্যে পরিব্রাজনাতেও ছিলেন একান্ত নিষ্ঠাবান ও নিরলস। কথা সাহিত্যের আদলে লেখা তাঁর দুটি বই  'ভলগা সে গঙ্গা' ও 'মানব সমাজ' বহুল পঠিত। বহুভাষাবিদ রাহুল সাংকৃত্যায়ন লিখতেন মূলত হিন্দি ভাষায়। পাশাপাশি তিনি সংস্কৃত, পালি, তিব্বতি, ভোজপুরী ভাষাতেও লিখেছেন। কলকাতায় রাহুল সাংকৃত্যায়ন বেশ সমাদৃত। রাহুল সাংকৃত্যায়ন দীর্ঘ ৭০ বছরের জীবনের ৪৫ বছর ভ্রমণে কাটিয়েছেন। রাহুল সাংকৃত্যায়ন তাঁর ৪৫ বছরের সঞ্চিত পরিব্রাজনজ্ঞান সমৃদ্ধ হয়ে দেড়শো গ্রন্থের প্রণেতা। 

১৮৯৩ সালের ৯ এপ্রিল উত্তর প্রদেশের পন্দাহা ঝেরার আজমগড় গ্রামে রাহুল সাংকৃত্যায়নের জন্ম। তাঁর আসল নাম কেদারনাথ পান্ডে। তিনি নিজামাবাদের উর্দু মাদ্রাসায় পড়াশুনা শুরু করেন। সে সময় মাদ্রাসাগুলিই ছিল গ্রামাঞ্চলে শিক্ষালাভের একমাত্র স্থান। রাহুলের সমসাময়িক আরোও অনেকেই পড়েছেন এই উর্দু ইস্কুলগুলিতে। তার মধ্যে নাম করা যায় মুনশি প্রেমচন্দ্রের। সরকারী বৃত্তির আভাবে রাহুলের প্রথাগত শিক্ষা শেষ হল উর্দু মিডল স্কুলেই।

রাহুল যখন বাড়ি ছেড়ে কলকাতায় এলেন তখন তাঁর বয়স ১০ বছর। কলকাতার রাস্তায় তিনি তখন জীবন, জ্ঞান আর এডভেঞ্চার খুঁজে বেড়াচ্ছেন। বাড়ি থেকে পালিয়ে এহেন কোনো কাজ নেই যা তিনি করেননি।  জীবিকা নির্বাহের জন্য হয়েছেন ফেরিওয়ালা, রেলের হেল্পার, কখনও বা রাধুনি। কলকাতার পথের অভিজ্ঞতা তাঁকে একেবারে পালটে দেয়। এই শহরই তাঁকে রাজনীতি সচেতন করে তোলে, সজাগ করে রোজকার বেঁচে থাকার লড়াই নিয়েও। রাস্তার সাইনবোর্ড দেখে তিনি ইংরাজী পড়তে শিখলেন। আর এই সব অভিজ্ঞতা থেকেই বুঝলেন তাঁর না দেখা নতুন যে জগৎ পড়ে আছে, তাকে জয় করতে পারবেন শুধু নিজের পড়াশুনা, শিক্ষার যোগ্যতা দিয়েই।

পড়াশুনার সুযোগ পেলেন বারনসীতে আর বিহারের ছাবড়ার কাছে পারসা মঠে। ১৯১৩ সালে ২০ বছর বয়সে এই মঠে তাঁর অন্তর্ভুত্তি হল 'উদাসী' সাধু রামোদার দাশ হিসাবে। পরবর্তীকালে বৌদ্ধভিক্ষু হয়ে রাহুল সাংকৃত্যায়ন নাম ধারণ করেন। বিশ্বসভায় এটি আজ একটি সুপরিচিত নাম। যাঁকে বিশ শতকের সবচেয়ে প্রভাবশালী পরিব্রাজক বলে পশ্চিমা-রাশিয়ানরা শ্রদ্ধা করেন। 

পরে সংস্কৃত শাস্ত্রগ্রন্থাদি নিয়ে পড়াশুনা করবেন বলে দক্ষিণ ভারতের তিরুমিশির উদ্দেশ্যে যাত্রা করলেন। সে যাত্রা অনেকটা পায়ে হেঁটে। মহাকাব্যিক এই যাত্রায় বুঝলেন, ভারত হল নিরবশেষ এক ভূখন্ডের নাম, যেখানে প্রতি চার ক্রোশ অন্তর মানুষের মুখের ভাষা পালটে যায়। আবার উত্তর ভারতের অযোধ্যায় তিনি আকৃষ্ট হলেন আর্য সমাজের প্রতি। এই সময়েই সংস্কৃত ন্যায় ও মীমাংসার পাঠের মাধ্যমে প্রবেশ করলেন ভারতীয় দর্শনের গভীরে।

এই সময় ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামেও নতুন এক যুগের সূচনা হয়েছে। যে বিহারে একদিন তিনি সন্ন্যাসী রূপে কাজ করেছেন, সেই বিহারেই রাহুল কাজ শুরু করলেন কংগ্রেস কর্মী- প্রচারক হিসাবে। রাজনৈতিক সংযোগ ও কার্যকলাপের জেরে অচিরেই কারাবন্দী হলেন।

বন্দীদশায় পড়লেন বৌদ্ধযুগের ভারতে ফা-হিয়েন এর ভ্রমণবৃত্তান্ত, বর্মি লিপিতে লেখা পালি গ্রন্থ 'মজ্ঝমনিকায়'। পরবর্তীকালে ভারতে বৌদ্ধ পুনরুভ্যুদয়ের ক্ষেত্রে তাঁর গুরুত্বপূর্ণ কাজগুলির মধ্যে প্রধান কাজ ছিল সংস্কৃত গ্রন্থগুলিতে উল্লিখিত বৌদ্ধ গ্রন্থগুলি খুঁজে বার করা। এই গ্রন্থগুলি হারিয়ে গিয়েছিল, ভারতে এগুলির কোনো খোঁজ ছিলনা।
রাহুল জানতেন যখন বিহার ও বাংলা থেকে বৌদ্ধ ধর্ম ছড়িয়ে পড়েছিল কাবুলে, দক্ষিণ ভারতে তখন ভারতের লিখিত ইতিহাসে ১৫০০ বছরের একটা ছেদ আছে।

বৌদ্ধ দর্শনের মহাপণ্ডিত রাহুল সাংকৃত্যায়ন দীর্ঘকাল বৌদ্ধদর্শন দিয়ে গবেষণা ও চর্চা করেছেন। বৌদ্ধধর্মে বস্তুবাদের রূপরেখা দেখতে পেয়েছিলেন। বুদ্ধকে জানতে, তাঁর দর্শনকে জানতে রাহুল তিব্বতি লামার ছদ্মবেশে তিব্বতে হাজির হন- একবার নয়, চারবার কোনো প্রাতিষ্ঠানিক সাহায্য ছাড়াই। সেখান থেকে গোপনে সংগ্রহ করে আনলেন অতি মূল্যবান বহু পুঁথি, পাণ্ডুলিপি, চিত্রপট ও বই। দেশ থেকে তিব্বতে চলে যাওয়া এইসব সম্পদ উদ্ধার করে এনেই থেমে থাকলেন না রাহুল। সে সব তিব্বতি ভাষা থেকে সংস্কৃতে অনুবাদ করেন।

রাহুল সাংকৃত্যায়ন দর্শন নিয়ে দুই খন্ডে বিখ্যাত বই লিখেছিলেন। এই 'দর্শন- দিগদর্শন' বইটি  বিশেষ স্বতন্ত্র স্থান লাভ করেছে পাঠকমহলে। দর্শন-দিগদর্শনকে বলা হয় প্রাচ্য ও প্রতীচ্য দর্শনের ইতিহাস। এতে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের ও বিভিন্ন যুগের দর্শনের মূলভাবনাগুলো যেভাবে উঠে এসেছে, তেমনটি আর কোথাও উঠে আসেনি। বিখ্যাত দার্শনিক লেখক রাহুল সাংকৃত্যায়নের লেখা আসাধারণ অনূদিত বাংলা বই "বৌদ্ধ ধর্ম"। মুল বইটি হিন্দিতে লেখা অনুবাদ করেছেন মলয় চট্টোপাধ্যায়। বইটিতে সংক্ষেপে বৌদ্ধ ধর্মের দার্শনিক দিকগুলি ব্যাখ্যা করা হয়েছে।

১৯৩৮ সালে তাঁর শেষ তিব্বত অভিযান থেকে ফেরার পর বিহারের কৃষকদের কাজে নিজেকে সম্পূর্ণভাবে নিয়োগ করেন। তিনি 'অল ইন্ডিয়া কিসান সভা'র সভাপতি নির্বাচিত হন। ১৯৩৯ সালে আবার কারাবন্দী হলেন।

১৯৪৩ সালে হাজারীবাগ কারাগারে বসেই কথা সাহিত্যের আদলে লিখেছিলেন 'ভলগা সে গঙ্গা'। এই বইটিতে তিনি ভলগা থেকে গঙ্গায় তিনি বিশ শতকের বিশের দশক পর্যন্ত মানব সমাজের ইতিহাসকে তুলে ধরেছেন। ভলগা থেকে আর্যরা কিভাবে ভারতে এসে পৌঁছায় তার ইতিদাস ব্যাখ্যা করা হয়েছে। বইটি ২০টি ছোট গল্পে সংকলনে রচিত। ১৯৪৪ সালে বইটি হিন্দিতে প্রকাশিত হবার পরে তীব্র বিরোধিতার সন্মুখিন হয়। 'মানব সমাজ' গ্রন্থটিতে সমাজবিজ্ঞানের দৃষ্টিকোণ থেকে পদ্ধতিগতভাবে অগ্রসরমাণ হতে পাঠকদের জন্য মার্কসীয় দৃষ্টিভঙ্গিতে মানবসমাজের ইতিহাস বিবৃত করেন।

বার বার এই পরিবর্তনের ব্যাখ্যা রাহুল সাংকৃত্যায়ন  দিয়েছেন এভাবে—'আমি কোনো এক সময় বৈরাগী ছিলাম, পরে আর্যসমাজী হয়েছিলাম, বৌদ্ধ হই, আবার বুদ্ধের ওপর অপার শ্রদ্ধা রেখেও মার্কসের শিষ্য হই।' 

দীর্ঘদিনের ডায়াবেটিকের রোগী রাহুল সাংকৃত্যায়ন ১৯৬১ সালে স্মৃতিশক্তি হারিয়ে ফেলেন। পরে তাঁকে চিকিৎসা করাতে রাশিয়ায় নিয়ে যাওয়া হয়, কিন্তু শরীরের উন্নতি না হওয়ায় ১৯৬৩ সালের ২৩ মার্চ দেশে ফিরিয়ে আনা হয়। ৫৬ বছর আগে ১৪ এপ্রিল এই মহামানবের দেহজ মৃত্যু হয়।

প্রিয় পাঠক–পাঠিকা ভালো লাগলে লাইক, কমেন্ট ও শেয়ার করুন। যে কোনো বিষয়ে জানা- অজানা তথ্য আমাদের সাথে আপনিও শেয়ার করতে পারেন।১০০০ শব্দের মধ্যে গুছিয়ে লিখে ছবি সহ মেইল করুন  wonderlandcity.net@gmail.com ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।

13 April 2019

প্রফুল্ল কুমার সরকারের ৭৫ তম প্রয়াণ দিবসে আমাদের বিনম্র শ্রদ্ধার্ঘ

১৯২২ সালে আনন্দবাজার পত্রিকার জন্ম। এই পত্রিকা প্রতিষ্ঠা করেছিলেন ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামী সুরেশচন্দ্র মজুমদার। প্রফুল্ল কুমার সরকার ছিলেন প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক। ১৩ই মার্চ, ১৯২২ সালে দোল পূর্ণিমার দিনে প্রথম লাল কালিতে চার পাতার সান্ধ্য আনন্দবাজার পত্রিকার ১০০০ কপি প্রকাশ হয়। আজ প্রতিদিন আনন্দবাজার পত্রিকার সংখ্যা ৭৬ লক্ষে ছাপিয়ে গেছে।

প্রফুল্ল কুমার সরকার স্বদেশী আন্দোলনে অংশগ্রহণ করেছিলেন। আনন্দবাজার পত্রিকায় ১৯২৩ সালে যতিন্দ্রনাথ মুখার্জীর প্রশংসা করে প্রবন্ধ লেখার অপরাধে তাঁকে প্রথম কারাবরণ করতে হয়। তারপর নির্ভীক সাংবাদিকতার জন্য তাঁকে বহুবার জেলে যেতে হয়। ওঁনার স্ত্রী নির্ঝরিনীও মহাত্মা গান্ধীর ডাকে সত্যাগ্রহ আন্দোলনে যোগ দিয়ে ১৯৩০ সালে কারাবরণ করেন।

প্রফুল্ল কুমার সরকারের জন্ম ১৮৮৪ সালে।
ছেলের নাম অশোক কুমার সরকার এবং নাতি অভীক সরকার। তিনি ১৩ই এপ্রিল, ১৯৪৪ সালে পরলোকগমন করেন। ওঁনার ৭৫ তম প্রয়াণ দিবসে আমাদের বিনম্র শ্রদ্ধার্ঘ।

প্রিয় পাঠক–পাঠিকা ভালো লাগলে লাইক, কমেন্ট ও শেয়ার করুন। যে কোনো বিষয়ে জানা- অজানা তথ্য আমাদের সাথে আপনিও শেয়ার করতে পারেন।১০০০ শব্দের মধ্যে গুছিয়ে লিখে ছবি সহ মেইল করুন  wonderlandcity.net@gmail.com ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।

12 April 2019

বিস্মৃত প্রায় বাঙালি পুরাতত্ত্ব ও ইতিহাস গবেষণায় অনন্য পথিকৃৎ রাখালদাস বন্দ্যোপাধ্যায়ের ১৩৪তম জন্মবার্ষিকীতে আমাদের বিনম্র শ্রদ্ধার্ঘ।

১৮৮৫ সালের ১২ই এপ্রিল প্রত্নতত্ত্ববিদ ও ঐতিহাসিক রাখালদাস বন্দ্যোপাধ্যায় মুর্শিদাবাদ জেলার বহরমপুরের কালিমাটি গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি আর. ডি. ব্যানার্জি নামে সমধিক পরিচিত।

তার বাবার নাম মতিলাল ও মা কালিমতী। রাখালদাস বহরমপুরের কৃষ্ণনাথ স্কুল ও কলেজ থেকে ১৯০০ সালে এনট্রান্স ও ১৯০৩ সালে এফএ পাস করেন। ১৯০৭ সালে কলকাতার প্রেসিডেন্সি কলেজ থেকে ইতিহাসে স্নাতক করেন এবং ১৯১০ সালের কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে একই বিষয়ে এমএ করেন।

রাখালদাস ১৯১০ সালে কলকাতার ভারতীয় জাদুঘরের প্রত্নতাত্ত্বিক বিভাগের সহকারী কর্মকর্তা এবং ১৯১১ সালে ভারতের  প্রত্নতাত্ত্বিক জরিপ বিভাগের সহকারী তত্ত্বাবধায়ক হিসেবে যোগদান করেন। ১৯১৭ সালে প্রত্নতাত্ত্বিক তত্ত্বাবধায়ক পদে পদোন্নতি লাভ করেন। কিন্তু ১৯২৬ সালে স্বেচ্ছায় অবসর গ্রহণ করেন। এর পর ১৯২৮ সালে বেনারস হিন্দু বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপক পদে যোগ দেন এবং মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত এ পদে অধিষ্ঠিত ছিলেন।

সিন্ধু সভ্যতার মহেঞ্জোদারো নগরীর আবিষ্কর্তা হিসেবে রাখালদাস বন্দ্যোপাধ্যয় একটি অতি পরিচিত নাম। পশ্চিম অঞ্চলের প্রত্নতত্ত্ব বিষয়ের তত্ত্বাবধায়ক প্রত্নতাত্ত্বিক হিসেবে তিনি গ্রিক বিজয় স্তম্ভের সন্ধানে সিন্ধু অঞ্চলে গিয়েছিলেন এবং ঢিবির শীর্ষদেশে বৌদ্ধ বিহারের উৎখননকালে তিনি এমন কতগুলি নিদর্শনের সন্ধান পান যা তাঁকে হরপ্পায় সাহানী কর্তৃক প্রাপ্ত অনুরূপ নিদর্শনের কথা মনে করিয়ে দেয়। ১৯২২ সালে তিনি মহেঞ্জোদারোর খননকার্য শুরু করেছিলেন। 
বাংলায় পাল রাজবংশ সম্পর্কিত বহু তথ্য তিনি আবিষ্কার করেন। পাহাড়পুরে খননকার্যের পরিচালক ছিলেন তিনি। মুদ্রাসম্বন্ধীয় বিষয়ে বাংলায় প্রথম গ্রন্থ রচনা তার অন্যতম কৃতিত্ব। তার উল্লেখযোগ্য কৃতিত্বের মধ্যে আরও রয়েছে দুই খণ্ডে বাঙ্গালার ইতিহাস, পাষাণের কথা, শশাঙ্ক ও ধর্মপাল।

মহেঞ্জোদাড়োর আবিষ্কারক রাখালদাসের মৃত্যু হয়েছিল ২৩শে মে, ১৯৩০ সালে। তখন তাঁর বয়স হয়েছিল মাত্র ৪৫ বছর। স্বল্পকালীন জীবনে রাখালদাস কমপক্ষে ১৪টি এককগ্রন্থ ও পুস্তক, ৯টি উপন্যাস এবং বাংলা ও ইংরেজিতে তিনশরও বেশি প্রবন্ধ রচনা করেন।

প্রিয় পাঠক–পাঠিকা ভালো লাগলে লাইক, কমেন্ট ও শেয়ার করুন। যে কোনো বিষয়ে জানা- অজানা তথ্য আমাদের সাথে আপনিও শেয়ার করতে পারেন।১০০০ শব্দের মধ্যে গুছিয়ে লিখে ছবি সহ মেইল করুন  wonderlandcity.net@gmail.com ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।

08 April 2019

বাংলার পতঙ্গবিশারদ ও উদ্ভিদবিদ গোপালচন্দ্র ভট্টাচার্যের ৩৮তম মৃত্যুবার্ষিকীতে আমাদের শ্রদ্ধাঞ্জলি।


পতঙ্গবিশারদ ও উদ্ভিদবিদ গোপালচন্দ্র ভট্টাচার্য ১৯৮১ সালের ৮ই এপ্রিল কলকাতায় তাঁর বাসভবনে লোকান্তরিত হন। আজ গোপালচন্দ্র ভট্টাচার্যের ৩৮তম মৃত্যুবার্ষিকীতে আমাদের শ্রদ্ধাঞ্জলি।

যে যুগে কেউই মাতৃভাষায় নিজের গবেষণার তথ্য প্রকাশের কথা ভাবতেই পারতেন না, তখন গোপালবাবু তাঁর মাকড়সা, পিঁপড়ে এবং কয়েকটি বিশেষ শ্রেণীর কীট-পতঙ্গের আচরণ ও তাদের শারীরবৃত্তীয় ধর্মাবলী সম্পর্কে গবেষণার তথ্যাদি বাংলা ভাষায় প্রকাশ করেছিলেন। তিনি অতি সহজ সাবলীল বোধগম্য ভাষায় তাঁর প্রবন্ধগুলি লিখতেন। এজন্যে ছোটবড় সকল শ্রেণীর পাঠকের কাছে তাঁর লেখাগুলি খুবই সমাদৃত।

প্রকৃতিবিজ্ঞানী গোপালচন্দ্র ভট্টাচার্যের জন্ম ১৮৯৫ সালের ১লা আগস্ট বাংলাদেশের ফরিদপুর জেলার লনসি গ্রামে। গোপালচন্দ্র ভট্টাচার্যের বয়স মাত্র ৫ বছর তখন তাঁর বাবার মৃত্যু হয়। সংসারের চাপে বাবার যজন-যাজন রক্ষার জন্য ৯ বছর বয়সেই উপনয়ন হয় গোপালচন্দের। পড়াশুনা ও যজমানি দুটো কাজ একই সঙ্গে চলতে থাকে। কষ্ট করে পড়াশোনা চালানোর পর, গোপালচন্দ ম্যাট্রিক পরীক্ষায় ফরিদপুর জেলায় সর্বোচ্চ নম্বর পেয়ে প্রথম বিভাগে উত্তীর্ণ হন।

জীববিদ্যা, রসায়ন, পদার্থবিদ্যা, জ্যোতির্বিজ্ঞান, নৃতত্ত্ব ইত্যাদি বিজ্ঞানের বিভিন্ন শাখার নানা বিষয়ে তিনি লিখেছেন, তবে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য হলো তাঁর জীববিদ্যা সম্পর্কিত রচনাগুলি। এই লেখাগুলি যেমন কৌতূহলোদ্দীপক তেমনি আকর্ষণীয়। তিনি যে পঞ্চাশ বছরেরও অধিককাল মাতৃভাষায় বিজ্ঞানসাহিত্যের সেবা করে আসছেন, তাতে তাঁকে এ যুগের অন্যতম পথিকৃত বললে অত্যুক্তি হয় না।

নিজের গ্রামের এক উচ্চ বিদ্যালয়ে তিনি শিক্ষকতার চাকরি পেলেন। সেখানে ১৯১৫ থেকে ১৯১৯ সাল পর্যন্ত ৪ বছর শিক্ষকতা করেন। স্কুলে পড়ানোর ফাঁকে ফাঁকে ঘুরে বেড়াতেন বনে-জঙ্গলে। নিবিষ্ট মনে লক্ষ্য করতেন কীটপতঙ্গের গতিবিধি। গাছপালা নিয়ে করতেন নানা ধরনের পরীক্ষা নিরীক্ষা। অজানাকে জানার এই আগ্রহই তাকে বিজ্ঞান সাধনায় অনুপ্রাণিত করেছিল। তাই তাকে বলা হয় স্বভাববিজ্ঞানী।

গোপালচন্দ্র প্রথমদিকে উদ্ভিদ নিয়ে গবেষণা শুরু করেন। গাছের কাণ্ডের স্থায়িত্ব নিয়ে গবেষণার ওপর ভিত্তি করে ১৯৩২ সালে প্রকাশিত হয় তার প্রথম গবেষণাপত্র। এরপর নিয়মিতভাবে জৈব আলো এবং উদ্ভিদবিদ্যার ওপর বিভিন্ন নিবন্ধ প্রকাশিত হতে থাকে। গোপালচন্দ্রের সাথে অদ্ভুতভাবে যোগাযোগ ঘটে আচার্য জগদীশ চন্দ্র বসুর। কৌতূহলবশত গোপালচন্দ্র জৈব আলোর বিকিরণ সম্বন্ধে গোপালচন্দ্র সেই সময়ের বিখ্যাত বাংলা মাসিক প্রবাসীতে লেখা পাঠান, যা অচিরেই জগদীশ চন্দ্রের দৃষ্টি আকর্ষণ করে। বিপ্লবী পুলিনবিহারী দাসের সহায়তায় গোপালচন্দ্রকে ডেকে পাঠালেন বসু বিজ্ঞান মন্দিরে। ১৯২১ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে বিজ্ঞানাচার্যের ডাকে সেখানে শুরু হলো গোপালচন্দ্রের গবেষণা। উদ্ভিদের রাহাজানি, গাছের আলো, শিকারি গাছের কথা, বাংলার গাছপালা  ইত্যাদি গোপালচন্দ্রের উদ্ভিদ সম্বন্ধে লেখা উল্লেখযোগ্য বই।

পরবর্তীকালে গোপালচন্দ্রের সমস্ত মনোযোগ কেন্দ্রীভূত হয় কীটপতঙ্গের গতিবিধির উপর। তিনি ছিলেন প্রচারবিমুখ। বিজ্ঞানের আকস্মিক আবিষ্কার, বিজ্ঞান অমনিবাস, পশুপাখি কীটপতঙ্গ, বিজ্ঞানী ও বিজ্ঞান সংবাদ ইত্যাদি বইগুলো তার আশ্চর্য গবেষণার সাক্ষ্য বহন করে।

গোপালচন্দ্র পরাধীন দেশের মুক্তিকামী বিপ্লবীদের প্রতি একনিষ্ঠ ছিলেন। তিনি গুপ্ত সমিতির জন্য নানা বিস্ফোরক পদার্থের ফর্মূলা সরবরাহ করতেন এবং পরোক্ষভাবে নানা উপায়ে তাদের সাহায্য করতেন।
এছাড়াও তিনি গ্রামের অবহেলিত মানুষদের মধ্যে শিক্ষা বিস্তারের জন্য স্থাপন করেছিলেন 'কমল কুটির'। বিনা বেতনে সেখানে লেখাপড়ার সাথে মেয়েদের শেখানো হতো হাতের কাজ। সামাজিক কুসংস্কার ও জাতপাতের বিরুদ্ধেও ছিলেন সবসময় প্রতিবাদমুখর।

তার ভাবনার জগতে শিশুরা অনেকটা জায়গা জুড়ে ছিল। ছোটদের মেধা আর মননকে শাণিত করবার জন্য বিভিন্ন স্বাদের গ্রন্থ রচনা করেছেন তিনি। এগুলো আজও মূল্যবান আর প্রশংসনীয়। শিশুদের জন্য তিনি লিখেছেন এক মজার বই 'করে দেখ'। বাংলায় জনপ্রিয় বিজ্ঞান লেখায় দক্ষ তো ছিলেনই পাশাপাশি ইংরেজিতেও তিনি লিখেছেন বহু প্রবন্ধ। ২২টির মতো নিবন্ধ তার ইংরেজী বিভিন্ন জার্নালে প্রকাশ পায়।

তিনি দীর্ঘদিন অত্যন্ত কৃতিত্বের সাথে মাসিক বিজ্ঞান পত্রিকা ' জ্ঞান ও বিজ্ঞান '-এর সম্পাদনা করেছিলেন। বাংলার সেসময়ের স্বনামধন্য বিজ্ঞান লেখকেরা এই পত্রিকায় নিয়মিত লিখতেন।

কাজের স্বীকৃতি অসাধারণ এই প্রকৃতিবিজ্ঞানী সম্মানিত হয়েছেন বহুবার। ১৯৭৪ সালে আচার্য সত্যেন্দ্রনাথ বসু ফলক পুরস্কার লাভ করেন। ১৯৭৪ সালের ২২ সেপ্টেম্বর তাকে দেওয়া হয় জাতীয় সংবর্ধনা। কীটপতঙ্গের জীবনযাত্রা সম্পর্কে লেখা তার বই ' বাংলার কীটপতঙ্গ ' ১৯৭৫ সালে রবীন্দ্র পুরস্কার লাভ করে। ১৯৭৯ সালে বসু বিজ্ঞান মন্দিরের পক্ষ থেকে তাকে জুবিলি মেডেল প্রদান করা হয়। ১৯৮০ সালে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় তাকে ডিএসসি ডিগ্রি প্রদান করে।

প্রিয় পাঠক–পাঠিকা ভালো লাগলে লাইক, কমেন্ট ও শেয়ার করুন। যে কোনো বিষয়ে জানা- অজানা তথ্য আমাদের সাথে আপনিও শেয়ার করতে পারেন।১০০০ শব্দের মধ্যে গুছিয়ে লিখে ছবি সহ মেইল করুন  wonderlandcity.net@gmail.com ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।

আজ ৮ই এপ্রিল বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের ১২৫তম মৃত্যুবার্ষিকীতে আমাদের শ্রদ্ধাঞ্জলি।


বঙ্কিমচন্দ্র-শরৎচন্দ্র থেকে রবীন্দ্রনাথ - ঊনবিংশ শতাব্দীর বাংলা সাহিত্যের নবজাগরণে বঙ্কিমচন্দ্রই ছিলেন প্রথম এবং অগ্রগণ্য সাহিত্যিক। 

আজও আমরা সাহিত্য-সম্রাট বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়কে মনে রেখেছি, গ্রহণ করেছি তাঁর রচিত 'বন্দেমাতরম্' সংগীত যা ভারতের জাতীয় স্তোত্র হিসাবে স্বীকৃত। আজ ৮ই এপ্রিল বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের ১২৫তম মৃত্যুবার্ষিকীতে আমাদের শ্রদ্ধাঞ্জলি।

বঙ্কিমচন্দ্র ১৮৩৮ সালের ২৬ শে জুন, চব্বিশ পরগণা জেলার  নৈহাটির কাঁঠালপাড়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতা যাদবচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় ছিলেন মেদিনীপুরের কলেক্টর। জন্মের পর ছয় বছর বঙ্কিমচন্দ্র কাঁটালপাড়াতেই অতিবাহিত করেন। পাঁচ বছর বয়সে কুল-পুরোহিত বিশ্বম্ভর ভট্টাচার্যের কাছে বঙ্কিমচন্দ্রের হাতেখড়ি হয়। শিশু বয়সেই তাঁর অসামান্য মেধার পরিচয় পাওয়া যায়।

তখনকার দিনে খুব অল্প বয়সেই ছেলেদের বিয়ে দেওয়া হত। সেই রেওয়াজ অনুযায়ী ১৮৪৯ সালে মাত্র ১১ বছর বয়সে বঙ্কিমচন্দ্রের বিয়ে হয় ৫ বছরের এক বালিকার সাথে। যশোরে চাকরিতে থাকাকালীন ১৮৫৯ সালে বঙ্কিমচন্দ্রের স্ত্রী মারা যান। পরের বছর জুন মাসে হালি শহরের বিখ্যাত চৌধুরী বংশের কন্যা রাজলক্ষ্মী দেবীর সঙ্গে তাঁর বিয়ে হয়। রাজলক্ষ্মী দেবী সম্পর্কে বঙ্কিমচন্দ্র বলেছেন- "আমার জীবন অবিশ্রান্ত সংগ্রামের জীবন। একজনের প্রভাব আমার জীবনে বড়ো বেশী রকমের- আমার পরিবার। আমার জীবনী লিখতে হলে তাঁর সম্পর্কেও জানা দরকার। তিনি না থাকলে আমি কী হতাম তা বলতে পারি না।"

১৮৫৩ সালটি বঙ্কিমচন্দ্রের জীবনে একটি  স্বরণীয় বছর। তখন প্রভাকরে উত্তর-প্রত্যুত্তরে কবিতা লেখা যুবক লেখকদের একটা মহা উৎসাহের ব্যাপার ছিল। বঙ্কিমচন্দ্র প্রথমে প্রভাকরে লিখে কাব্য রচনার অভ্যাস শুরু করেন। এই বছর প্রভাকর পত্রিকার কবিতা প্রতিযোগিতায় বঙ্কিমচন্দ্র অংশগ্রহণ করেন এবং পুরস্কার হিসাবে লাভ করেন ২০ টাকা। পরবর্তীকালে বঙ্কিমচন্দ্র বলেছিলেন সংবাদ প্রভাকরের কবিবর ঈশ্বরগুপ্তের সহায়তা না পেলে তিনি গদ্য-পদ্য রচনা প্রকাশ করতে পারতেন না।

১৮৫৭ সালে জানুয়ারী মাসে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা হলে পরের বছর ১৮৫৮ সালে প্রথমবারের মত বি.এ. পরীক্ষা নেওয়া হয়। মোট দশজন ছাত্র প্রথমবারে পরীক্ষা দিয়েছিলেন। পাশ করেছিলেন মাত্র দুজন- বঙ্কিমচন্দ্র ও যদুনাথ বসু। আইন পড়া শেষ হওয়ার আগেই যশোরের ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট ও ডেপুটি কলেক্টরের চাকরি পান।

কাজের সূত্রে বঙ্কিমচন্দ্রকে দেশের বিভিন্ন জায়গায় যেতে হত। বহু মানুষের দুঃখ বেদনার সাথে ঘনিষ্ঠভাবে পরিচিত হবার সুযোগ পেয়েছিলেন। এইসব বিষয়গুলিকে পাথেয় করে তিনি একের পর এক উপন্যাস রচনা করেছেন।

১৮৬৪ সালে বঙ্কিমচন্দ্রের প্রথম উপন্যাস
দুর্গেশনন্দিনী মুদ্রিত ও প্রচারিত হয়। এই উপন্যাস সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করে। শিবনাথ শাস্ত্রীর কথায় "দুর্গেশনন্দিনীতে আমরা যাহা দেখিলাম, তাহা অগ্রে কখনও দেখি নাই। এরূপ অদ্ভুত চিত্রণ শক্তি বাংলাতে কেহ অগ্রে দেখে নাই। দেখিয়া সকলে চমকিয়া উঠিল।"  তারপর লেখা হল 'কপালকুণ্ডলা'। যে তুলি 'দুর্গেশনন্দিনী'র নয়নানন্দকর কমনীয়তা তুলে ধরেছিল সেই তুলি 'কপালকুণ্ডলা'য় গাম্ভীর্য রসপূর্ণ ভাব সৃষ্টি করল।

স্বদেশবাসীদের মনে দেশপ্রেম জাগানোর উদ্দেশ্যে তিনি আনন্দমঠ, দেবী চৌধুরাণী এবং সীতারাম প্রকাশ করেন। আনন্দমঠ উপন্যাসে যে ব্রিটিশরাজের বিরুদ্ধে সম্রাজ্ঞী বিদ্রোহের কথা তুলে ধরা ছিল সে যুগের বিপ্লবীদের কাছে তা ছিল 'গীতা'র মতো। আনন্দমঠ উপন্যাসে বন্দেমাতরম সংগীত দেশপ্রেমের শ্রেষ্ঠ গান রচনা হয়। স্বাধীনতা লাভের পর এই বন্দেমাতরম গণপরিষদে স্তোত্র হিসাবে গৃহিত হয়।

তাঁর বিষবৃক্ষ, কৃষ্ণকান্তের উইল এবং রজনী আধুনিক পারিবারিক উপন্যাসের উৎসস্থল। মনের অন্তর্দ্বন্দ্ব ও পরনারীর সাথে সম্পর্কের জটিলতা এগুলোতে পরিস্ফুট হয়েছে। ক্রমে প্রকাশিত হয় মৃণালিণী, ইন্দিরা, রাজসিংহ ইত্যাদি তাঁর উল্লেখযোগ্য উপন্যাস। সীতারাম বঙ্কিমচন্দ্রের সর্বশেষ উপন্যাস। এছাড়া কমলাকন্তের দপ্তর, ধর্মতত্ত্ব, রম্যরচনা; শ্রীমদভগবত গীতা ইত্যাদি গ্রন্থ রচনা করে তিনি অমর হয়ে আছেন। এই সব রচনা-উপন্যাস বঙ্কিমচন্দ্রেকে বাংলা সাহিত্যের শীর্ষস্থানে পৌঁছেদিল। হলেন সাহিত্য সম্রাট বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়। ১৮৭২ সালে মাসিক পত্রিকা 'বঙ্গদর্শন' প্রকাশ হলে বঙ্কিমচন্দ্রের প্রতিভার আর একটা দিক দেখা গেল।

দীর্ঘ ৩৩ বছর বঙ্কিমচন্দ্র সরকারী পদে বহাল থেকে ১৮৯১ সালে অবসর গ্রহণ করে চলে আসেন কলকাতার পটলডাঙায়। ১৮৯৪ সালের মার্চ মাসে তাঁর বহুমূত্র রোগ ধরা পরে এবং এই রোগের কারণে সৃষ্ট স্বাস্থ্যগত জটিলতায় ১৮৯৪ সালের ৮ই এপ্রিল  কলকাতায় বঙ্কিমচন্দ্র পরলোকগমণ করেন।

স্বীকৃতি স্বরূপ ব্রিটিশ সরকার তাকে দুটি খেতাবে ভূষিত করে - ১৮৯১ সালে রায় বাহাদুর খেতাব এবং ১৮৯৪ সালে কম্প্যানিয়ন অফ দ্য মোস্ট এমিনেন্ট অর্ডার অফ দ্য ইন্ডিয়ান এম্পায়ার খেতাব। 

প্রিয় পাঠক–পাঠিকা ভালো লাগলে লাইক, কমেন্ট ও শেয়ার করুন। যে কোনো বিষয়ে জানা- অজানা তথ্য আমাদের সাথে আপনিও শেয়ার করতে পারেন।১০০০ শব্দের মধ্যে গুছিয়ে লিখে ছবি সহ মেইল করুন  wonderlandcity.net@gmail.com ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।

03 April 2019

আজ ৩রা এপ্রিল বাংলার বিস্মৃতপ্রায় গর্ব জ্যোতির্বিজ্ঞানী রাধাগোবিন্দ চন্দ্রের ৪৪তম মৃত্যুবার্ষিকীতে আমাদের শ্রদ্ধাঞ্জলি।

পুঁথিগত বা প্রাতিষ্ঠানিক কোনো ডিগ্রি না থাকলেও শুধু নিজের আগ্রহ ও ইচ্ছা মানুষকে কতদূর এগিয়ে নিয়ে যেতে পারে তার উদাহরণ রাধাগোবিন্দ চন্দ্র। ১৯১০ সালে রাধাগোবিন্দ খালি চোখে হ্যালির ধূমকেতু পর্যবেক্ষণ করেন। তখন তিনি যেসব তথ্য উন্মোচন করেছিলেন তা 'প্রবাসী' মাসিক পত্রিকায় ছাপা হয়েছিল। এর কিছুদিন পর রাধাগোবিন্দ 'ধূমকেতু' নামে একটি গ্রন্থ রচনা করেন। এই গ্রন্থে তিনি ধূমকেতু সম্পর্কে পৌরাণিক গল্পগুলোর আধুনিক ব্যাখ্যা দিয়েছেন।

রাধাগোবিন্দ চন্দ্র ১৬ই জুলাই ১৮৭৮ সালে যশোরের বাকচর গ্রামে মামার বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতা গোরাচাঁদ চন্দ্রের আদি নিবাস ছিল বর্ধমান জেলায়। পদ্মমুখীর সাথে বিয়ের পর তিনি শ্বশুর বাড়িতে বসবাস শুরু করেন। রাধাগোবিন্দের মামা অভয়া চরণ দে ছিলেন একজন লেখক। রাধাগোবিন্দ প্রথমে গ্রামের প্রাইমারী স্কুলে পড়াশুনা শুরু করেন। পরে তিনি যশোর জেলা স্কুলে ভর্ত্তি হন। তবে প্রথাগত পড়াশোনায় মন না থাকায় তিনি তিন বারের চেষ্টাতেও দশম শ্রেণীর প্রবেশিকা পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে পারেননি।

রাধাগোবিন্দের দিদিমা সারদা সুন্দরীর  আকাশের গ্রহ-নক্ষত্রের বিষয়ে খুব ভালো জ্ঞান ছিল। তিনি দৃশ্যমান উজ্জ্বল তারাগুলিকে সহজেই চিনতে পারতেন।
রাধাগোবিন্দ ষষ্ঠ শ্রেণীতে পড়ার সময় 'ব্রহ্মাণ্ড কী প্রকাণ্ড' নামে একটি প্রবন্ধ পড়ে তাঁর মনে জ্যোতির্বিজ্ঞান সম্বন্ধে নানা রকম প্রশ্ন জাগে এবং তখন থেকেই তাঁর নক্ষত্রবিদ হবার প্রবল ইচ্ছা জাগে।

রাধাগোবিন্দ ১৮৯৯ সালে ২১ বছর বয়সে মুর্শিদাবাদের গোবিন্দমোহিনীর সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। তখন গোবিন্দমোহিনীর বয়স ছিল ৯ বছর। তাদের দুটি সন্তান ছিল। রাধাগোবিন্দ এর দুই বছর পর যশোর কালেক্টরেট অফিসে খাজাঞ্চির চাকরি নেন।

যশোর জেলার আইনজীবী কালীনাথ মুখোপাধ্যায় ছিলেন তাঁদের পারিবারিক বন্ধু। জ্যোতির্বিজ্ঞান চর্চা ছিল তাঁর নেশা। আইনজীবী হলেও গ্রহ-নক্ষত্রের ওপর তিনি বইও লিখতেন। সন্ধ্যের পর তার বাড়িতে বসত গ্রহ-নক্ষত্র নিয়ে আড্ডা। রাধাগোবিন্দ বাড়ি থেকে অফিস সাইকেলে যাতায়াত করতেন। তিনি অফিস শেষে বাড়ি ফেরার পথে কালীনাথ মুখোপাধ্যায়ের বড়িতে যেতেন এবং আগ্রহ নিয়ে তাদের আলোচনা শুনতেন। প্রথম প্রথম আলোচনায় তিনি তেমন পাত্তা পেতেন না। কিন্তু পরে রাধাগোবিন্দর উৎসাহ লক্ষ্য করে কালীনাথ বাবু তাকে প্রুফ রিডারের কাজ করান। বই প্রকাশ হবার পর রাধাগোবিন্দ সেই সব বই বাজার থেকে কিনতেন নিজের পড়ার জন্য। কালীনাথ বাবুর কাছ থেকে তিনি কম্পলিমেন্টারী কপি পেতেন না।

বকচরের একতলা বাড়ির ছাদে সন্ধ্যার পর পরই রাধাগোবিন্দ গ্রহ-নক্ষত্র পর্যবেক্ষণ করতেন। গ্রহ-নক্ষত্র সম্পর্কিত বইপত্র হাতের কাছে না থাকায় প্রশ্নগুলো একই বৃত্তে ঘুরপাক খেত। কালীনাথ বাবু সংস্কৃতে  'ভোগোলা চরিতম' ও 'পপুলার হিন্দু অ্যাস্ট্রোনমি' নামে গ্রন্থ লিখেছিলেন। বইগুলো পড়ে রাধাগোবিন্দের জ্যোতির্বিজ্ঞান সম্পর্কে প্রাথমিক ধারণা লাভ করেন। একসময় কালীনাথ মুখোপাধ্যায়ের কাছ থেকে একটি 'স্টার ম্যাপ' ধার নিয়ে নক্ষত্র অনুসন্ধান শুরু করেন।

শান্তিনিকেতনের বিজ্ঞান শিক্ষক জগদানন্দ রায় তাঁকে দূরবীন কেনার পরামর্শ দেন। সেই সময় সরকার কর্মচারীদের মাইনে বাড়িয়ে ছিল। মাইনের বর্ধিত এবং বকেয়া জমা টাকা দিয়ে রাধাগোবিন্দ ১৯১২ সালে তিন ইঞ্চি মাপের একটি দূরবিন কেনেন। ১৯১৮ সালের ৭ জুন তিনি নতুন নক্ষত্র আবিষ্কার করেন। নক্ষত্রটির নামকরণ হয় 'নোভা অ্যাকুইলা থ্রি ১৯১৮'। 

রাধাগোবিন্দের নোভা দর্শন সম্পর্কিত প্রবন্ধ জগদানন্দ রায়ের মাসিক পত্রিকা 'প্রবাসী'তে গুরুত্ব সহকারে ছাপা হত। 'হার্ভার্ড অবজারভেটরি'র পরিচালক এডওয়ার্ড চার্লস পিকারিংকে বিষয়টি লিখিতভাবে অবহিত করেন রাধাগোবিন্দ। তিনি নবগঠিত আমেরিকান অ্যাসোসিয়েশন অব ভেরিয়েবল স্টার অবজারভার্সের (অ্যাভসো) সদস্য মনোনীত হন। অ্যাভসোর সদস্য হওয়ার পর তিনি 'ভেরিয়েবল স্টার' নিয়ে কোমর বেঁধে লেগে যান। অ্যাভসোর সদস্যরা তাঁকে একটি সাড়ে ছয় ইঞ্চি দূরবিন কিনে দেন। ১৯২৬ সালে দূরবিনটি হার্ভার্ড থেকে বকচরে পৌঁছায়। ভারতের প্রথম দূরবিন তৈরির কারখানা 'ধর ব্রাদার্স'-এর স্বত্বাধিকারী নগেন্দ্রনাথ দূরবিনটির পিতলের স্ট্যান্ড তৈরি করে দেন।

রাধাগোবিন্দে ১৯১৯ থেকে ১৯৫৪ সাল পর্যন্ত ৩৭ হাজার ২১৫টি ভ্যারিয়েবল স্টার সম্পর্কে অ্যাভসোকে তথ্য সরবরাহ করেন। তারার আলো, দূরত্ব এবং ঔজ্জ্বল্য পরিবর্তনের কারণ ছাড়াও সৃষ্টি রহস্যের নানা গুরুত্বপূর্ণ বিষয় বিজ্ঞানীরা জানতে পেরেছিলেন রাধাগোবিন্দের কাজের সূত্র ধরেই।

দেশ ভাগের পর রাধাগোবিন্দ ভারতে চলে আসেন। ভারতে আসার পর তিনি যথেষ্ট আর্থিক দুরবস্থার মধ্যে পড়েন। অভাব অনটনে খাবারের সংস্থান করতেও তার সংগ্রাম করতে হতো। বারাসাতের দুর্গাপল্লীতে ১৯৭৫ সালের ৩রা এপ্রিল ৯৭ বছর বয়সে প্রায় বিনা চিকিৎসায় তিনি মারা যান। মৃত্যুর সময় তার প্রায় সমস্ত বইপত্র এবং তিন ইঞ্চির  দূরবীক্ষণ যন্ত্রটি তিনি দান করে দিয়ে যান বারাসাতের সত্যভারতী বিদ্যাপীঠে।

কোনোরকম ডিগ্রি বা প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা ছাড়াই তিনি যে প্রজ্ঞা ও বিচক্ষণতার সাথে সকল সীমাবদ্ধতার মধ্যেও জ্যোতির্বিজ্ঞানে অসামান্য অবদান রেখেছেন এর জন্যে তিনি চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবেন আমাদের হৃদয়ে।

অ্যাভসো ছাড়াও ব্রিটিশ অ্যাস্ট্রোনমিক্যাল অ্যাসোসিয়েশন এবং ফ্র্যান্সের লিও অবজারভেটরির বিজ্ঞানীরাও রাধাগোবিন্দেকে বিভিন্নভাবে সম্মানিত করেছেন। জ্যোতির্বিজ্ঞানী রাধাগোবিন্দ চন্দ্র প্রথম বাঙালি যিনি ১৯২৮ সালে ফ্রান্স সরকার থেকে 'Officer D Academic Republique Francaise' সন্মান অর্জন করেন।

প্রিয় পাঠক–পাঠিকা ভালো লাগলে লাইক, কমেন্ট ও শেয়ার করুন। যে কোনো বিষয়ে জানা- অজানা তথ্য আমাদের সাথে আপনিও শেয়ার করতে পারেন।১০০০ শব্দের মধ্যে গুছিয়ে লিখে ছবি সহ মেইল করুন  wonderlandcity.net@gmail.com ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।

30 March 2019

আজ ৩০শে মার্চ, লেখক ও চিত্রনাট্যকার শরদিন্দু বন্দ্যোপাধ্যায়ের ১২০তম জন্মবার্ষিকীতে আমাদের শ্রদ্ধাঞ্জলি।

শরদিন্দু বন্দ্যোপাধ্যায়ের নাম করলেই তাঁর সৃষ্টি গোয়েন্দা চরিত্র ব্যোমকেশ বক্সীর কথা মনে পড়ে যায়। শরদিন্দু বন্দ্যোপাধ্যায় 'পথের কাঁটা' গল্পে প্রথম ব্যোমকেশের আত্মপ্রকাশ ঘটান। তখন তাঁর বয়স ৩৩ বছর। এর পরের গল্প 'সীমান্তহীরা'। এই দুটি গল্প লেখার পর তিনি ব্যোমকেশকে নিয়ে একটি সিরিজ লেখার পরিকল্পনা করেন। ব্যোমকেশ বক্সী শরদিন্দু বন্দ্যোপাধ্যায়ের সৃষ্ট সবচেয়ে জনপ্রিয় চরিত্র। ডিটেকটিভ ব্যোমকেশ নিজেকে 'সত্যান্বেষী' বলে পরিচয় দেয়৷ পাঠকরা  'সত্যান্বেষী' গল্পটাকেই ব্যোমকেশের প্রথম গল্প হিসাবে ধরে। এই ডিটেকটিভ ব্যোমকেশকে নিয়ে শরদিন্দু বন্দ্যোপাধ্যায় মোট ৩২টি গল্প -উপন্যাস লেখেন। ব্যোমকেশ চরিত্রটি নিয়ে বাংলা এবং হিন্দী দুটি ভাষাতেই অনেক সিনেমা তৈরী হয়েছে।

শরদিন্দু বন্দ্যোপাধ্যায় জন্মগ্রহণ করেন উত্তরপ্রদেশের জৌনপুর শহরে মামার বাড়িতে। তাঁর আদি নিবাস ছিল উত্তর কলকতার বরানগরে। ১৯২৬ সালে পটনা থেকে আইন পাশ করে তিনি বাবার জুনিয়র হিসাবে ওকালতি শুরু করেন। ১৯২৯ সালে ওকালতি ছেড়ে তিনি সাহিত্য চর্চাতে মন দেন।

শরদিন্দু বন্দ্যোপাধ্যায়ের রচিত প্রথম সাহিত্য প্রকাশিত হয় তাঁর ২০ বছর বয়সে, যখন তিনি কলকাতায় বিদ্যাসাগর কলেজে  পড়াশুনো করছিলেন। সেটা ছিল বাইশটি কবিতার সংকলন 'যৌবন স্মৃতি'। পড়াশুনোর সাথেই তিনি সাহিত্য চর্চা করতে থাকেন। তাঁর রচনার মধ্যে আছে বিভিন্ন ঐতিহাসিক উপন্যাস। যেমন 'কালের মন্দিরা', 'গৌর মল্লার', 'তুমি সন্ধ্যার মেঘ', 'তুঙ্গভদ্রার তীরে', ইত্যাদি। সামাজিক উপন্যাস যেমন 'জাতিস্মর', 'বিষের ধোঁয়া' বা অতিপ্রাকৃত নিয়ে তার 'বরদা সিরিজ' ও অন্যান্য গল্প এখনো বেস্টসেলার। শরদিন্দু ছোটগল্প ও শিশুসাহিত্য রচনাতেও পারদর্শী ছিলেন।

শরদিন্দু ১৯৩৮ সালে বম্বের বম্বে টকিজ এ চিত্রনাট্যকাররুপে কাজ শুরু করেন। ১৯৫২ সালে সিনেমার কাজ ছেড়ে স্থায়ীভাবে পূনায় বসবাস করতে শুরু করেন। পরবর্তী ১৮ বছর তিনি সাহিত্য চর্চায় অতিবাহিত করেন।

তাঁর অনান্য উপন্যাস- গল্প থেকেও সিনেমা তৈরি হয়েছে, যেমন উত্তম কুমারকে নিয়ে সত্যজিত রায়ের চিড়িয়াখানা। তপন সিংহের 'ঝিন্দের বন্দী', তরুণ মজুমদারের 'দাদার কীর্তি' ইত্যাদি সিনেমা বাঙালি দর্শকের মন জয় করেছিল। সত্যজিত রায়ের ছেলে সন্দীপ রায় শরদিন্দুর 'মনচোরা' উপন্যাস নিয়েও সিনেমা করেন।

১৯৭০ সালের ২২শে সেপ্টেম্বর হৃদ্‌রোগে আক্রান্ত হয়ে তাঁর মৃত্যু হয়।

তিনি রবীন্দ্র পুরস্কার, শরৎস্মৃতি পুরস্কার, মতিলাল পুরস্কার সহ অন্যান্য পুরস্কার লাভ করেন।

প্রিয় পাঠক–পাঠিকা ভালো লাগলে লাইক, কমেন্ট ও শেয়ার করুন। যে কোনো বিষয়ে জানা- অজানা তথ্য আমাদের সাথে আপনিও শেয়ার করতে পারেন।১০০০ শব্দের মধ্যে গুছিয়ে লিখে ছবি সহ মেইল করুন  wonderlandcity.net@gmail.com ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।

23 March 2019

২৩ মার্চ, ১৯৩১ সালে ব্রিটিশ শাসনকে অগ্রাহ্য করে স্বাধীনতার জন্য হাসিমুখে ফাঁসির দড়ি গলায় পরেছিলেন ভগৎ সিং, সুখদেব থাপার ও শিভারাম রাজগুরু।

২৩ মার্চ, ১৯৩১ সালে ব্রিটিশ শাসনকে অগ্রাহ্য করে স্বাধীনতার জন্য হাসিমুখে ফাঁসির দড়ি গলায় পরেছিলেন ভগৎ সিং, সুখদেব থাপার ও শিভারাম রাজগুরু। তাঁদের আত্মবলিদানের  ৮৮তম বার্ষিকীতে আমরা শ্রদ্ধা জানাই।

পরাধীন ভারতে ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনে সরাসরি সশস্ত্র পথে বিপ্লবে অংশ নিয়েছিলেন ভগৎ সিং, সুখদেব থাপার ও শিভারাম রাজগুরু৷ লাহোরে আন্দোলনকারী লালা লাজপত রায়ের উপর চড়াও হয়েছিল ব্রিটিশ পুলিশ৷ লাঠির আঘাতে মৃত্যু হয় লালা লাজপত রায়ের৷ প্রত্যাঘাতে মরিয়া হয়ে ওঠেন বিপ্লবী চন্দ্রশেখর আজাদের নেতৃত্বে হিন্দুস্তান সোশালিস্ট রিপাবলিকান অ্যাসোশিয়েসন৷ গুলি করা হয় লাহোরের অ্যাসিস্টেন্স পুলিশ কমিশনার জন স্যান্ডার্সকে এবং মৃত্যু হয় তার৷ ঘটনায় প্রত্যক্ষ যোগ ছিল ভগৎ সিং, সুখদেব ও রাজগুরুর৷

ব্রিটিশ সরকার বিপ্লবীদেরকে দমনের জন্য পুলিশকে অধিক ক্ষমতা প্রদান করে ভারত প্রতিরক্ষা আইন পাশ করার সমস্ত প্রক্রিয়া চুড়ান্ত করে। ১৯২৯ সালের ৮ এপ্রিল সেন্ট্রাল লেজিসলেটিভ অ্যাসেম্বলিতে আইনটির অধ্যাদেশ পাশ হবার সিদ্ধান্ত হয়। এই আইনকে রুখে দেওয়ার জন্য সেন্ট্রাল লেজিসলেটিভ অ্যাসেম্বলিতে ভগৎ সিং ও বটুকেশ্বর বোমা নিক্ষেপ করে ‘ইনকিলাব জিন্দাবাদ’, ‘সাম্রাজ্যবাদ নিপাত যাক’, ‘দুনিয়ার মজদুর এক হও’ শ্লোগান দেন, যে-আওয়াজ ওইভাবে এর আগে কখনো শোনা যায়নি। পলায়নের চেষ্টা না-করে তাঁরা নির্ভয়ে ইস্তাহার বিলি করতে থাকেন। এসময় পুলিশ তাঁদের গ্রেফতার করে। লাহোড় ষড়যন্ত্র মামলায় সুখদেব ও রাজগুরুও ধরা পড়ে যান।

তিন ব্রিটিশ বিচারকের সমন্বয়ে গঠিত এক বিশেষ ট্রাইব্যুনাল লাহোড় ষড়যন্ত্র মামলায় ভগৎ সিং, সুখদেব ও রাজগুরুকে অপরাধী সাব্যস্ত করে এবং ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করার রায় প্রদান করে। তখন বিপ্লবীদের বয়স মাত্র ২৩-২৪ বছর। ১৯৩১ সালের ২৩ মার্চ সন্ধ্যা ৭ টায় এই তিন বিপ্লবীকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়।

প্রিয় পাঠক–পাঠিকা ভালো লাগলে লাইক, কমেন্ট ও শেয়ার করুন। যে কোনো বিষয়ে জানা- অজানা তথ্য আমাদের সাথে আপনিও শেয়ার করতে পারেন।১০০০ শব্দের মধ্যে গুছিয়ে লিখে ছবি সহ মেইল করুন  wonderlandcity.net@gmail.com ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।

22 March 2019

ভারতের বিপ্লবী মাষ্টারদা সূর্য সেনের ১২৫তম জন্ম বার্ষিকীতে আমাদের শ্রদ্ধাঞ্জলি।


বাংলার সশস্ত্র বিপ্লবের ইতিহাসে মাষ্টারদা সূর্য সেনের নাম ভারতবাসীরা চিরদিন মনে রাখবে। ব্রিটিশ ভারতের এই বিপ্লবী ১৯৩০ সালের চট্টগ্রাম অস্ত্রাগার লুন্ঠন-সহ অনেক  বিপ্লবের কান্ডারী ছিলেন। মাস্টারদা সূর্য সেনের নেতৃত্বেই কিছুকালের জন্য বাংলার এক নিভৃত স্থানে বাঙালির স্বাধীনতার পতাকা উড়েছিল। পুরো নাম সূর্যকুমার সেন। তবে মাষ্টারদা নামে সবার কাছে পরিচিত ছিলেন। ওঁনার স্মরণে কলকাতার কলেজ স্কোয়ারের পাশ দিয়ে গুরুত্বপূর্ণ রাস্তাটির নাম হয়েছে সূর্য সেন স্ট্রীট। তাছাড়া বাঁশদ্রোনী এলাকার মেট্রো স্টেশনের নাম হয়েছে মাস্টারদা সূর্য সেন। 
মাস্টারদা সূর্য সেন ১৮৯৪ সালের ২২শে মার্চে চট্টগ্রাম জেলার রাউজান থানার নোওয়াপাড়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। বহরমপুর কলেজে পড়ার সময় তিনি বিপ্লবী দলের সঙ্গে যুক্ত হয়ে পড়েন। চট্টগ্রামে ফিরে তিনি গণিতের শিক্ষক হিসেবে ওরিয়েন্টাল স্কুলে শিক্ষকতা গ্রহণ করেন এবং সেখানে ছাত্রসমাজ ও যুবসমাজের মধ্যে বিপ্লবী অন্দোলনের প্রচারের মাধ্যমে শক্তিশালী বিপ্লবী সংগঠন তৈরী করেন। সকলের প্রতি তাঁর দরদ ছিল অপরিসীম এবং খুব শীঘ্রই তিনি সকলের শ্রদ্ধার পাত্র হয়ে উঠে মাস্টারদা নামে পরিচিতি হন।
মাস্টারদা সূর্য সেন ১৯২১ সালে  গান্ধীজীর অসহযোগ আন্দোলনে অংশ গ্রহণ করেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত এই অহিংস আন্দোলন এক বৎসরের ভিতর ভারতের স্বারজ আনতে ব্যর্থ হলে, বিপ্লবীরা আবার সশস্ত্র বিপ্লবের পথ বেছে নেন।  
১৯২৩ সালে ২৪ই ডিসেম্বর চট্টগ্রাম শহরে একপ্রান্তে  পাহাড়ী এলাকায় পুলিশের সাথে খন্ডযুদ্ধে  মৃতপ্রায় মাস্টারদা ও অম্বিকা চক্রবর্তী পুলিশের হাতে ধরা পড়েন। পরে পুলিশ হাসপাতালে তাঁদের চিকিৎসা করার পর তাঁরা সুস্থ হয়ে ওঠেন। এঁদের বিরুদ্ধে পুলিশ ডাকাতির মামলা রুজু করেছিল হয়েছিল। যতীন্দ্র মোহন এই মামলা পরিচালিত করেন এবং প্রায় ৯ মাস কারাবন্দি থাকার পর প্রমাণাভাবে তাঁরা মামলা থেকে তাঁরা খালাস পান।

১৯২৪ খ্রিষ্টাব্দের ৫ই সেপ্টেম্বর চট্টগ্রামের নোয়াপাড়ায় একটি অস্ত্রলুটের ঘটনা ঘটে। এই ঘটনায় মাস্টারদার নাম শোনা যায়। বিপ্লব আন্দোলন সংগঠিত করতে পুলিশের চোখ এড়িয়ে তাঁকে প্রায়ই কলকাতায় এসে শোভাবাজারে বিপ্লবীদের আস্তানায় উঠতেন। ১৯২৫ সালের ১০ই নভেম্বর সেখানে পুলিশ হানা দেয়। পুলিশ শোভাবাজারে মাস্টারদাকে ধরতে গেলে তিনি গামছা পরে চাকরের বেশে পুলিশের চোখে ধুলো দিয়ে পালিয়ে যান। 
এর প্রায় একবছর পর ১৯২৬ খ্রিষ্টাব্দের ৮ অক্টোবর কলকাতার আমহার্স্ট স্ট্রিটের এক মেস থেকে পুলিশ তাঁকে গ্রেফতার করে। তাঁদের বিরুদ্ধে দায়ের করা হয় 'মুরারিপুকুর ষড়যন্ত্র মামলা'। এ মামলায় ১৯২৮ সাল পর্যন্ত  তাঁকে মেদিনীপুর প্রেসিডেন্সি জেল, পুনার রায়েরোড়া জেল ও বম্বের রত্নগিরি জেলে কারাবাস করতে হয়।

১৯৩০ খ্রিষ্টাব্দে চট্টগ্রামে ফিরে এসে তিনি চট্টগ্রামের বিপ্লবী সংগঠনে তাঁদের গোপন বৈঠকে চূড়ান্ত সংগ্রামের এক পরিকল্পনা করেন। মাস্টারদা স্বীয় কর্মপন্থাকে কার্যকরী করার জন্য ছক তৈরী করে ফেলেন। এর চূড়ান্ত রূপ লাভ করে ১৯৩০ সালের ১৮ই এপ্রিল গুডফ্রাইদের দিনে যখন ইংরেজরা বিভিন্ন আনন্দ উৎসবে মত্ত থাকে। মোট ৬৫ জন বিপ্লবী যোদ্ধা নিয়ে পাঁচ প্রকার কর্মসূচী গ্রহণ করেছিলেন। ১) পুলিশ ঘাঁটি দখল করে অস্ত্র ছিনিয়ে নেওয়া ২) চট্টগামের সৈন্যবাহিনীর অস্ত্রাগার ঘাঁটি ধ্বংস করে অস্ত্র লুট করা ৩) কলকাতা ও ঢাকার সাথে যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন করা ৪) চট্টগ্রামের সাথে  রেল ও টেলিগ্রাফ সংযোগ বন্ধ করা ৫) ইউরোপিয়ান ক্লাবগুলো আক্রমণ করে ইংরেজদের বন্দি করা। সিন্ধান্ত অনুযায়ী কাজও চলল। রাত ১০টা নাগাদ চট্টগাম অস্ত্রাগারে বেশ কিছুক্ষণ খন্ডযুদ্ধ চলে এবং অস্ত্র লুট করে গাড়ী বোঝাই করে বিপ্লবীরা পুলিশ ব্যারাক ও টেলিফোন এক্সচেঞ্জে আক্রমণ চালায়। এই অতর্কিত আক্রমণে মোট ১১ জন পুলিশ নিহত হয়। অল্প সময়ের মধ্যে সব বিপ্লবীরা পুলিশ ব্যারাকে সমবেত হন। মাস্টারদাকে অধিনায়ক করে এক অস্থায়ী সরকার প্রতিষ্ঠা করা হয় যা ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামের ইতিহাসে এক স্মরণীয় অধ্যায়। 
এই সময় শহরের অপর প্রান্ত থেকে কিছু ব্রিটিশ সৈন্য বিভ্রান্তি অবস্থার মধ্য থেকেও ডবল মুরিং জেটিতে রক্ষিত স্বয়ংক্রিয় ম্যাশিনগান থেকে গুলি বর্ষণ শুরু করেছিল। বিপ্লবীরা জানতো স্বয়ংক্রিয় ম্যাশিনগানের বিরুদ্ধে তাঁরা যুদ্ধে পারবেন না। এই আক্রমণের সময় রাত্রের অন্ধকারে অনন্ত সিং, গণেশ ঘোষ, আনন্দগুপ্ত, জীবন ঘোষাল মূল দল থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছিলেন। বাকি সদস্যদের নিয়ে  মাস্টারদা সূর্যসেন  পাহাড়ে আশ্রয় নিল। ২২শে ‌এপ্রিল বিকালে  বৃটিশ বাহিনী জালালাবাদ পাহাড়ে অভিযান শুরু করে। ব্রিটিশ সৈন্যরা পাহাড় বেয়ে উঠ আসার সময় বিপ্লবীরা আক্রমণ চালায়। জালালাবাদ যুদ্ধে প্রথম শহীদ হন ১৪ বৎসর বয়সী টেগরা বল। এরপর আগে পরে একে একে বিপ্লবীরা যুদ্ধে প্রাণ হারাতে থাকেন। এই দিনের যুদ্ধে ব্রিটিশ বাহিনী জালালাবাদ পাহাড় দখল করতে পারেনি। বিপ্লবীদের নিয়ে  মাস্টারদা সূর্যসেন রাতের অন্ধকারে জালালাবাদ পাহাড় ত্যাগ করেন। 
মাস্টারদা কোয়েপাড়ার বিনয় সেনের বাড়িতে আশ্রয় নেন। এই সময় তাঁর সাথে ছিল অপর বিপ্লবী নির্মল সেন।মাস্টারদা সূর্য সেনের দলের অনেকেই গ্রেফতার হয়েছিলেন। কিন্তু সূর্যসেন ধরা ছোঁয়ার বাইরেই থেকে গেলেন। এই সময় তাঁর গ্রেফতারের জন্য পুরস্কার ঘোষণাও করা হয়েছিল। এরই ভিতরে ১৩ জুন পটিয়ার ধলঘাটে সাবিত্রী দেবীর বাড়িতে বিপ্লবীরা মিলিত হন। এই বাড়িতে তখন ছিলেন সূর্যসেন, নির্মল সেন,  প্রীতিলতা এবং অপূর্ব সেন। সেখানে আচম্বিতে গুর্খা সৈন্য নিয়ে হানা দেয় ক্যাপ্টেন ক্যামেরন। যুদ্ধে ক্যাপ্টেন ক্যামেরন নিহত হয়। পরে প্রীতিলতা ও অপূর্ব সেনকে নিয়ে মাস্টারদা সন্তর্পণে এই বাড়ি ত্যাগ করেন। এই সময় সৈন্যদের গুলিতে অপূর্ব সেন মৃত্যবরণ করেন।    
এরপর  মাস্টারদা সূর্য সেন চট্টগ্রামের পাহাড়তলীতে অবস্থিত ইউরোপীয়ান ক্লাব আক্রমণের পরিকল্পনা করলেন। এ অভিযানের দায়িত্ব দেওয়া হল প্রীতিলতা ওয়াদ্দেদারকে। ১৯৩২ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর রাতে আক্রমণ করা হল ইউরোপীয়ান ক্লাব। সফল আক্রমণ শেষে ফেরার পথে এক ইংরেজ অফিসারের গুলিতে প্রীতিলতা আহত হলেন। ধরা না দেবার প্রত্যয়ে সঙ্গে রাখা সায়ানাইড বিষ পান করে তিনি আত্মাহুতি দিলেন। ভারতের মুক্তিসংগ্রামের প্রথম নারী শহীদের নাম প্রীতিলতা।
মাস্টারদা সূর্য সেন ১৯৩৩ সালে ২রা ফেব্রুয়ারি গৈরালা গ্রামে আশ্রয় নিয়েছিলেন। এই সময় ইংরেজ সরকার তাঁর মাথার দাম ধার্য করেছিল দশ হাজার টাকা। মাস্টারদা সূর্য সেনের গোপন অবস্থানের কথা জানতে পেরে ক্যাপ্টেন ওয়ামস্‌লীর নেতৃত্বে একদল গুর্খা সৈন্য মাস্টারদাকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়। 
বিচারে মাস্টারদার ফাঁসির আদেশ হয়। ১৯৩৪ সালের ১২ জানুয়ারি মধ্য রাতে  ফাঁসির মঞ্চে প্রাণ দেন বাংলার বীর বিপ্লবী মাস্টারদা সূর্য সেন।  
প্রিয় পাঠক–পাঠিকা ভালো লাগলে লাইক, কমেন্ট ও শেয়ার করুন। যে কোনো বিষয়ে জানা- অজানা তথ্য আমাদের সাথে আপনিও শেয়ার করতে পারেন।১০০০ শব্দের মধ্যে গুছিয়ে লিখে ছবি সহ মেইল করুন  wonderlandcity.net@gmail.com ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।